আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‘‌অগ্নিদেব চ্যাটার্জির ছবি’— এটুকু শুনলেই‌ এরপরে যে নামটা মনে আসতে বাধ্য, সেটা ঋতুপর্ণা সেনগুপ্ত!‌ অগ্নিদেবের পরিচালনায় চারুলতা ২০১১, তিন কন্যা, মিসেস সেন— একের পর এক সিনেমায় কাজ করেছেন ঋতু। এবার অপেক্ষা আর একটির— ‘‌গহীন হৃদয়’‌। কৌশিক সেন, দেবশঙ্কর হালদারদের পাশাপাশি এখানে প্রধান মহিলা চরিত্রে দেখা যাবে ঋতুপর্ণাকেই। ঋতু বলছেন, ‘‌সুচিত্রা ভট্টাচার্যের গল্প নিয়ে তৈরি সিনেমায় কাজ করাটা একটা সৌভাগ্য। সুচিত্রা ভট্টাচার্যের প্রথম যে গল্প নিয়ে তৈরি সিনেমায় (‌দহন)‌ আমি কাজ করেছিলাম, সেটাও জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিল, আমিও জাতীয় পুরস্কার পেয়েছিলাম। বরাবরই ওঁর সঙ্গে আমার খুব ঘনিষ্ঠ সম্পর্ক ছিল। ওঁর লেখাও আমার খুবই ভাল লাগতো। কারণ ওঁর গল্প মানুষের সম্পর্কের কথা বলে।’‌
অগ্নিদেব যখন ঋতুপর্ণকে গহীন জীবনের গল্পটার কথা বলেন, শুরুতেই কাজ করতে রাজি হয়ে গিয়েছিলেন ঋতুপর্ণা। তিনি বলছেন, ‘‌গহীন হৃদয়ে যেভাবে সম্পর্কের কথা বলা হয়েছে, সেটা ভাল না লাগার প্রশ্নই ওঠে না। এমনিতেই গল্পটায় অনেকগুলো স্তর অনেকগুলো রং আছে। তার ওপরে অগ্নি যেভাবে প্রত্যেকটা চরিত্রকে ফুটিয়ে তুলেছেন, সেটাও কম আকর্ষণীয় নয়।’‌
তবে রঙিন নয়, প্রেক্ষাগৃহে গহীন হৃদয় দেখানো হবে সাদা–কালো ভাবেই। অগ্নিদেব বলছিলেন, ‘‌সাদা–কালো করা হবে বলেই আলো এবং কস্টিউম নিয়ে প্রচুর খাটা হয়েছে। প্রথম দৃশ্যটা শ্যুট করার আগে অবধি ঠিক করিনি যে পুরো ছবিটাই সাদা কালো করা হবে। পরে মনে হল গল্পটার মধ্যে একটা বিষাদ আছে। সাদা–কালো করলে হয়তো সেটা খুব ভাল করে বুঝিয়ে দেওয়া যাবে।’ শুধু সাদা–কালোর চমকই নয়। এই ছবিতে নেই কোনও গানও। অগ্নিদেব বলছেন, ‘‌ছবির মধ্যে রয়েছে একটা নিবিড় নিস্তব্ধতা। আর নিস্তব্ধতার চেয়ে বড় সঙ্গীত তো আর কিছু হয় না। ওই ‌নিস্তব্ধতাটাকে ব্যাহত করতে চাইনি।’‌ ঋতুপর্ণার সঙ্গে রসায়ন নিয়ে তাঁর মূল্যায়ন, ‘‌আমাদের দু’‌জনের বোঝাপড়া খুব ভাল। আমি মনে করি, ওর থেকে ভাল অভিনেত্রী এই মুহূর্তে টলিউডে নেই। আর ওর সঙ্গে কাজ করার সবচেয়ে বড় সুবিধা হল, ও পরিচালক হিসেবে আমাকে চোখ বন্ধ করে ভরসা করে।‌ তাই কাজ করাটা খুব সহজ হয়ে যায়।’‌ 
সুচিত্রা ভট্টাচার্যের গল্প অবলম্বনে একের পর এক সম্পর্কের টানাপোড়েনের ছবি করেছেন ঋতুপর্ণা। সুচিত্রার কাহিনী অবলম্বনে যে খুব শিগগিরই তাঁকে মিতিন মাসির চরিত্রে দেখা যেতে পারে, সেই ইঙ্গিতও দিয়ে রাখলেন ঋতুপর্ণা। আরও জানালেন, সামনের বইমেলাতেই প্রকাশ পেতে পারে তাঁর লেখা বই। 

জনপ্রিয়

Back To Top