সৌগত চক্রবর্তী: ‘‌ময়ূরাক্ষীর পরে আবার অপেক্ষা করছিলাম অতনুর (‌ঘোষ)‌ সঙ্গে কাজ করার। যেভাবে অতনু গল্প বলেন, যেভাবে উনি স্ক্রিপ্ট লেখেন, যেভাবে উনি ছবিটা বানান সেটাই আমাকে অপেক্ষা করায় অতনুর সঙ্গে কাজ করার। দুটো চরিত্রর ওপর নির্ভর করে এই ছবিটা। ছবিটা দেখে নানারকম ভাবনা আসতে পারে। আসলে ছবিটা খুব মজার। কেউ ভাবতে পারেন এটা রোমান্টিক ছবি, কেউ ভাবতে পারেন এটা থ্রিলার, কেউ ভাবতে পারেন এটা কমেডি। তবে একটা কথা ঠিক যে, ছবিটা সবার ভাল লাগবে।’‌ বললেন প্রসেনজিৎ। অতনু ঘোষের পরিচালনায় ‘‌রবিবার’‌ ছবির ট্রেলার লঞ্চের অনুষ্ঠানে। প্রসেনজিৎ এই ছবিতে অভিনয় করেছেন ‘‌অসীমাভ’‌র ভূমিকায়। আর জয়া আহসান আছেন ‘‌সায়নি’‌র ভূমিকায়। প্রসেনজিৎ বললেন, ‘‌ছবির অসীমাভ আর সায়নি—দুটো চরিত্র অতনু তৈরি করেছেন অদ্ভুতভাবে। আমার ছবি দেখার খুব অভ্যেস আছে। অন্যান্য কোনও ছবিতে আমি ‘‌অসীমাভ’‌কে খুঁজে পাইনি আর ‘‌সায়নি’‌কেও খুঁজে পাইনি। এই দুটো চরিত্রকে জীবন্ত করতে আমাকে আর জয়াকে বেশ বেগ পেতে হয়েছে। বেশ কঠিন চরিত্র। এই ছবিটা একটা দিনের গল্পর ওপর দাঁড়িয়ে আছে। আমি খুশি এই ছবির একটা অংশ হতে পেরে।’‌
কিন্তু ঠিক কোন ভাবনা থেকে অতনু ঘোষ এই ছবির গল্প তৈরি করেছেন, পরিচালনা করেছেন?‌ অতনু ঘোষ বললেন, ‘‌রবিবার এমন একটা দিন, যেটা ছুটির দিন। আরামের দিন, অবসরের দিন। কিন্তু অদ্ভুতভাবে এই গল্পের দুটি চরিত্রের ক্ষেত্রে সেই রবিবার পাল্টে যায়।’‌ বললেন, এখন এই জেট এজের যুগে ক্রমাগত অস্তিত্বের আশঙ্কা, ব্যস্ততা আর টেনশনের কারণে প্রত্যেকটা মানুষই কিন্তু ভেতরে ভেতরে একা হয়ে যাচ্ছে। ভীষণ একা। ‘‌ময়ূরাক্ষী’ ছবিতে এরকম দুটো মানুষের গল্প বলেছি। যারা পিতা-‌পুত্র।‌ ‘‌ময়ূরাক্ষী’‌র পর এরকম দুটি মানুষের আরও অন্তত দুটো গল্প বলার ইচ্ছা ছিল। এই গল্পেও দুটি মানুষ, তারা এই বিশাল শহরে একা। তাদের মধ্যে কোনও একটা সময়ে সম্পর্ক ছিল। এখন ১৫ বছর পরে একটা রবিবারে তাদের যখন দেখা হয়, তারা তখন অনেক পরিণত, তাদের জীবনের দৃষ্টিভঙ্গী অনেক পাল্টে গেছে। তারা যে আবার গল্পের শেষে হাত ধরাধরি করে চলে যাবে, গল্পটা সেরকম নয়।’
আগেই বলা হয়েছে এই ছবিতে সায়নির ভূমিকায় অভিনয় করেছেন জয়া আহসান। এই প্রথম প্রসেনজিতের সঙ্গে কোনও ছবিতে অভিনয় করলেন তিনি। জানালেন, ‘‌এই ছবিতে একটা দিনের ঘটনা দেখানো হয়েছে কিন্তু তা একটা জীবন প্রবাহের মতো। বুম্বাদার (‌প্রসেনজিৎ)‌ সঙ্গে এটাই আমার প্রথম কাজ। তাই অপেক্ষা করছিলাম অন্যরকম কিছু যদি হয়। সেটাই হয়েছে। সব চরিত্র তো আর মন জুড়ে থাকে না। কিন্তু এই চরিত্র আমার মন জুড়ে বিরাজ করেছে। বলতেই হবে আমার করা অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ কাজ হল ‘‌রবিবার’‌। আমাদের প্রত্যেকের নিজের নিজের চরিত্রে অভিনয় করতে বেশ কষ্ট হয়েছে। কিন্তু ছবিটা দুর্বোধ্য নয়। দর্শকের এই ছবি ভাললাগবে বলেই আমার বিশ্বাস।’‌
যদিও দুটি মুখ্য চরিত্র অসীমাভ ও সায়নিকে নিয়ে এক দিনের গল্প বলছে এই ছবি, যে গল্প সকাল সাতটা থেকে শুরু হয়ে রাত বারোটার আগেই শেষ। তবে এই গল্পে সায়নি ও অসীমাভর সঙ্গে সাক্ষাৎ হবে বেশ কিছু চরিত্রের। তাদের সঙ্গে আলাপে বার বার পাল্টে যাবে এই দুটি চরিত্রের যাত্রার গতি। এই চরিত্রগুলিতে অভিনয় করেছেন তথাগত ব্যানার্জি, মিঠুন দেবনাথ, শাশ্বতী, সুদীপা বসু ও শিশু শিল্পী শ্রীজাত বন্দ্যোপাধ্যায়। ছবির সঙ্গীত পরিচালনায় আছেন দেবজ্যোতি মিশ্র। শিল্প নির্দেশনায় গৌতম বসু। সন্দীপ আগরওয়াল প্রযোজিত ইকো এন্টারটেনমেন্টের এই ছবি মুক্তি পাবে ২৭ ডিসেম্বর। 
 

জনপ্রিয়

Back To Top