আজকাল ওয়েবডেস্ক: 'টুওয়ার্ডস আ হ্যাপিলি এভার আফটার...' 

 

 

নিখিলের সঙ্গে তাঁর প্রথম 'অবৈধ বিয়ে'র ছবির ক্যাপশনে এমনটাই লিখে আজ থেকে দুই বছর আগে ২০ জুন সোশ্যাল মিডিয়ায় পোস্ট করেছিলেন নুসরত জাহান। লাল লেহেঙ্গা, গলায় গোলাপের মালা, মাথায় সিঁদুর নুসরতের। নিখিলের চোখে চোখ রেখে তাকিয়ে আছেন তিনি। তখনও কি কেউ জানত নিখিল তাঁর স্রেফ 'সহবাসের সঙ্গী'! দুবছর পর সেটাই সর্বসমক্ষে বিবৃতি দিয়ে বুধবার জানিয়েছেন নুসরত। তাঁর মতে, তুরস্কের আইন অনুযায়ী তাঁদের বিয়ের অনুষ্ঠান অবৈধ। হিন্দু-মুসলিম ধর্মের মধ্যে বিয়ের ক্ষেত্রে বিশেষ বিবাহ আইন অনুসারে তাঁদের রেজিস্ট্রেশনও হয়নি। ফলে সেটা বিয়ে নয়। তাই আইনি মতে বিচ্ছেদের প্রশ্নও উঠছে না। কেবল সহবাস করেছেন তাঁরা। প্রেস বিবৃতি দিলেও নেটিজনদের একাংশ ক্ষুব্ধ। দুবছর ধরে তাহলে স্বামী-স্ত্রীর অভিনয় করলেন কেন! শুধু তাই নয়। একাধিক প্রশ্নও তুলেছেন অনেকে। বুধবার সেই বিবৃতি প্রকাশ পাওয়ার পর থেকেই সোশ্যাল মিডিয়া জুড়ে ফের ভাইরাল হয়েছে তাঁদের 'অবৈধ বিয়ে'র ছবি। তুরস্কের বিয়ে'র অনুষ্ঠান, হানিমুন, কলকাতার দুর্গাপুজোর ছবি, কলকাতায় রিসেপশনে মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জির সঙ্গে তাঁদের ছবি নেট মাধ্যমে সকলের দেওয়ালে দেওয়ালে ঘুরছে। ট্রোলিংয়ের শিকারও হচ্ছেন তিনি। কিন্তু বিবৃতি প্রকাশ করার কয়েক ঘণ্টার মধ্যেই নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে নিখিলের সঙ্গে সমস্ত ছবি মুছে ফেলেন নুসরত। কেবল হানিমুনে তাঁর নিজের ছবি ছাড়া। তাহলে কি বাধ্য হয়েই মুছে ফেললেন ছবি! নাকি মুছে ফেলতে চাইছেন জীবনের এই অধ্যায়টা! শেষ পর্যন্ত তাঁদের বিচ্ছেদের জল কতদূর গড়ায় দেখার জন্য মুখিয়ে সকলে। 

জনপ্রিয়

Back To Top