আইসিএমআর বলছে, দেশের ৬৭.৬ শতাংশ মানুষের শরীরে করোনার অ্যান্টিবডি পাওয়া যাচ্ছে

আজকাল ওয়েবডেস্ক: করোনার তৃতীয় ঢেউ নিয়ে যে বিষয়টা সবথেকে উদ্বেগের তা হল এতে ক্ষতিগ্রস্ত হওয়ার আশঙ্কা বেশি শিশুদের। কিন্তু ইন্ডিয়ান কাউন্সিল অফ মেডিক্যাল রিসার্চ (আইসিএমআর) অন্য কথা বলছে। তারা জানিয়েছে, শিশুদের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বেশি, তারা যথেষ্ট ভালভাবেই ভাইরাসের মোকাবিলা করতে পারবে। তাই প্রাথমিক স্কুল এখন খুলে দেওয়া যেতেই পারে।  
এদিন একাধিক পরিসংখ্যান তুলে ধরেছে আইসিএমআর। প্রথমত, গত ২৪ ঘণ্টায় সারাদেশে নতুন সংক্রমণ হয়েছে ৩০ হাজার ৯৩ জন। ১২৫ দিন পর দেশের সংক্রমণ ৩০ হাজারের ঘরে নামল। দৈনিক মৃত্যুও ৫০০-র নীচে নেমেছে। গত ২৪ ঘণ্টায় মৃত্যুর সংখ্যা ৩৭৪। আইসিএমআর বলছে, দেশের ৬৭.৬ শতাংশ মানুষের শরীরে করোনার অ্যান্টিবডি পাওয়া যাচ্ছে। আক্রান্ত হওয়ার সংখ্যা প্রায় ৪০ কোটি মানুষের। 
দেশে কমেছে সংক্রমণের হারও। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে সংক্রমণের হার ১.৬৮ শতাংশ। জুনের শেষ সপ্তাহ জুড়েই সংক্রমণের হার ৩ শতাংশের নীচেই ছিল। সেই সঙ্গে কমেছে সক্রিয় রোগীর সংখ্যাও। মঙ্গলবার পর্যন্ত দেশে সক্রিয় রোগীর সংখ্যা ৪ লক্ষ ৬ হাজার ১৩০ জন। অন্যদিকে সোমবারের তুলনায় দেশে টিকাকরণের গতি বাড়ল আরও খানিকটা। গত ২৪ ঘণ্টায় দেশে টিকা নিয়েছেন ৫২ লক্ষের বেশি মানুষ। তবে শিশুদের জন্য স্কুল এখনই খোলা হবে কি না তা নিয়ে ধন্দ ১০০ শতাংশ কাটেনি।