IFFI 53: লাল কার্পেটে দৃপ্ত পদক্ষেপ, ‘মহানন্দা’র উপস্থিতিতে উজ্জ্বল গোয়া চলচ্চিত্র উৎসব

আজকাল ওয়েবডেস্ক: সাহিত্য থেকে সমাজসেবা— মহাশ্বেতা দেবী যখন যেখানে পা রেখেছেন তাঁর দৃপ্ত পদক্ষেপ চোখে পড়েছে।

৫৩তম গোয়া আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবেও সেই ধারাই ধরে রাখলেন সরস্বতীর বরকন্যা। অরিন্দম শীলের 'মহানন্দা' ছবি সাহিত্যিককে পৌঁছে দিয়েছে লাল কার্পেটে। সেখানেও একই ভাবে তাঁর জোরালো উপস্থিতি। পর্দায় তাঁকে ফুটিয়ে তুলেছেন গার্গী রায়চৌধুরী। শহর কলকাতা, বিদেশে প্রশংসিত হওয়ার পরে এ বার ৫৩তম গোয়া আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবে তিনিই আকর্ষণের কেন্দ্রে।

 

ইন্ডিয়ান প্যানোরামা বিভাগে এ বছর দেখানো হচ্ছে মোট ২৫টি কাহিনিচিত্র। ২০টি প্রামাণ্যচিত্র। কাহিনিচিত্র বিভাগে ১২জন জুরি বেছে নিয়েছেন ২০টি ছবি। তার মধ্যে একমাত্র বাংলা ছবি প্রযোজক ফিরদৌসল হাসানের ‘মহানন্দা’। যা মহাশ্বেতা দেবীর জীবনের উপরে ভিত্তি করে বানানো। ছবি দেখানোর আগে-পরের ছবি সোশ্যাল মিডিয়ায় ভাগ করে নিয়েছেন পরিচালক। সেই ছবি বলছে, সনাতনী বাঙালিয়ানায় সেজে ‘মহানন্দা’কে দর্শকদের কাছে পৌঁছে দিয়েছেন টিম ‘মহানন্দা’। পরিচালক, প্রযোজক, সঙ্গীত পরিচালক বিক্রম ঘোষ এবং গার্গী রায়চৌধুরী লাল কার্পেটে দাঁড়িয়ে আনন্দে-উত্তেজনায় বিহ্বল।

নামভূমিকায় অভিনয় যে কোনও অভিনেতার কাছে মস্ত চ্যালেঞ্জ। সে কথা কখনও অস্বীকার করেননি অভিনেত্রী। ২৩ এপ্রিল নিজের জন্মদিনে একান্ত সাক্ষাৎকারে নায়িকা বলেছিলেন, ‘‘এ বারের জন্মদিনে ঈশ্বর আমায় চ্যালেঞ্জ ছুড়েছেন। ‘মহানন্দা’ চরিত্র দিয়ে। আমি সেই চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করেছি। আর তাঁর কাছেই প্রার্থনা জানিয়েছি, আগামী জন্মদিনে যেন এর থেকেও এতটা শক্ত চরিত্র পাই। যা করতে গিয়ে নিজেকে নিংড়ে দিতে হবে। অভিনয়ের শেষে রোজ ক্লান্ত হব। রোজ ঘুম থেকে জেগে উঠব নতুন উদ্যমে।’’

খবর, গোয়ায় উপস্থিত দর্শকেরা গার্গী এবং তাঁর পর্দার ‘মহানন্দা’ রূপ দেখে মহাখুশি। এটুকুর জন্যই তিনি দীর্ঘ অনেকটা সময় গার্গী রায়চৌধুরী কম, ‘মহানন্দা’ হয়েই বেশি কাটিয়েছেন। যার পুরো কৃতিত্ব তিনি দিয়েছেন অরিন্দম শীলকে। গার্গীর কথায়, ওঁর কারণে তিনি সবার কাছে এত প্রশংসিত। তাঁকে বাহবা জানিয়েছেন, তারকা বন্ধু থেকে সাধারণ মানুষ। কোনও পুরস্কার অনুষ্ঠানে গেলে ইন্ডাস্ট্রির সবাই একটা সময় হইহই করে উঠছেন, ‘‘ওই যে মহানন্দা! খুব ভাল কাজ করেছ গার্গী।’’

আকর্ষণীয় খবর