আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ একের পর এক অভিযোগের ভারে ক্লান্ত হয়ে পড়েছিলেন তিনি। যে ‘‌স্টারকিড’‌-দের ওপর স্পটলাইট ফেলার জন্য আজ তাঁর দিকে আঙুল উঠছে, তাঁরা এখন কই? তাঁর হয়ে তো কেউ কথা বলেননি সোশ্যাল মিডিয়ায়। এটাই কি মূল কারণ করণ জোহরের ‘‌মুম্বই অ্যাকাডেমি অফ মুভিং ইমেজ’‌ বোর্ড ছেড়ে বেরিয়ে আসার? 
সুশান্তের মৃত্যু পর থেকে বলিউড ইন্ডাস্ট্রির কঠিন সত্যটা সকলের সামনে নগ্ন হয়ে পড়েছিল। বর্তমানে তারকার নাম কুড়িয়েছেন, বা কোনও নবাগত অভিনেতা, একাধিক শিল্পী দিনের পর দিন অপমানিত হওয়ার অভিজ্ঞতা তুলে ধরেছেন। তাঁরা জানিয়েছেন, কীভাবে ইন্ডাস্ট্রির প্রভাবশালীরা পদে পদে তাঁদের আকারে ইঙ্গিতে বুঝিয়ে দিয়েছেন যে তাঁরা বহিরাগত। সবথেকে বেশি যাঁদের দিকে আক্রমণের তীরটি গিয়েছে তাঁরা হলেন করণ জোহর, আলিয়া ভাট, করিনা কাপুর খান, সলমন খান। সুশান্ত সিং রাজপুতের মৃত্যুর দু’‌সপ্তাহের মধ্যেই এই তর্কবিতর্কের প্রভাব দেখা গিয়েছে তারকাদের টুইটার ও ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে। একদিকে করণ টুইটার থেকে সমস্ত তারকা বন্ধুদের আনফলো করে দিয়েছেন, তাঁদের মধ্যে তাঁর তথাকথিত ইন্ডাস্ট্রি সন্তান আলিয়া ও বরুনও রয়েছেন। অন্যদিকে তাঁর ইনস্টাগ্রাম প্রোফাইলে এক ধাক্কায় অনুগামীর সংখ্যা ছ’‌লক্ষ কমে গিয়েছে। শুধু তাঁর না, আলিয়া, করিনা, সলমনের অনুগামীর সংখ্যাও অনেকটাই কমে গিয়েছে। এমনই পরিস্থিতিতে দেখা গেল, ‘‌মুম্বই অ্যাকাডেমি অফ মুভিং ইমেজ’‌ বোর্ড থেকে পদত্যাগ করার সিদ্ধান্ত নিলেন করণ জোহর। মনে করা হচ্ছে, ক্রমাগত সোশ্যাল মিডিয়ায় আক্রান্ত হতে হতে তিনি কষ্ট পেয়েছেন। আর তাই তিনি যে এই সিদ্ধান্তকে চূড়ান্ত করার জন্য নিজেকে আরেকটু সময় দেবেন, সেটাও তিনি করেননি। তার প্রমাণ, তিনি ইতিমধ্যেই বোর্ডের স্মৃতি কিরণের ইমেল–এ তাঁর ইস্তফাপত্র পাঠিয়ে দিয়েছেন। জানা গিয়েছে, ‘‌মুম্বই অ্যাকাডেমি অফ মুভিং ইমেজ’ চলচিত্র উৎসবের চেয়ারপার্সন দীপিকা পাড়ুকোন করণকে এবিষয়ে দ্বিতীয়বার ভাবার জন্য অনুরোধ করেছেন। কিন্তু করণ মনস্থির করে নিয়েছিলেন, তাই সেই কথোপকথনে কোনও লাভ হয়নি। এখনও পর্যন্ত প্রযোজক করণ জোহর এবিষয়ে নিজে কোনও মন্তব্য করেননি।

জনপ্রিয়

Back To Top