অদিতি রায়: প্রদীপ্ত ভট্টাচার্যের ‘বাকিটা ব্যক্তিগত‌’‌র ‘প্রেজেন্টার‌’‌ হিসেবে নিতান্তই ব্যক্তিগত উদ্যোগে ছোট্ট যাত্রা শুরু করেছিলেন সৃজিত মুখোপাধ্যায়। আর ব্যক্তিগত রইলনা তাঁর জার্নি। ‘এসভিএফ‌’‌-‌এর সঙ্গে হাত মিলিয়ে সৃজিতের ‘ম্যাচকাট প্রোডাকশনস’‌ এবার ময়দানে নামল জোরকদমে। সৃজিতের ভাষায়, ২০১০ থেকে ‘এসভিএফ‌’‌-‌এর সঙ্গে তাঁর প্রণয়ের সম্পর্ক এবার পরিণতি পেল ছাঁদনাতলায়!‌ ‘ম্যাচকাট‌’‌ এবং ‘এসভিএফ‌’‌-‌এর পাণিগ্রহণের ঘোষণা হল সোমবার এক সাংবাদিক সম্মেলনে।
সাংবাদিক সম্মেলনে সৃজিত জানালেন তাঁর প্রোডাকশন হাউস এবং ‘এসভিএফ‌’‌ যৌথ উদ্যোগে আপাতত তিনটি ছবি এবং একটি ওয়েবসিরিজ বানানোর পরিকল্পনা নিয়ে মাঠে নামছে। এটা অবশ্যই প্রাথমিক পরিকল্পনা। তাঁদের দাম্পত্য চলবে আগামীদিনেও। প্রথম ছবিটির ঘোষণা করলেন সৃজিত। শংকরের বিখ্যাত উপন্যাস ‘‌চৌরঙ্গী’‌ অবলম্বনে ছবিটি পরিচালনা করবেন নিজেই। পরের ছবিগুলো বন্ধুবান্ধব এবং নতুন প্রতিভাদের দিয়ে বানানোর ইচ্ছার কথাও জানালেন সৃজিত।
সৃজিত মুখোপাধ্যায় ছাড়াও সোমবারের সাংবাদিক সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন ‘এসভিএফ‌’‌-‌এর কর্ণধার শ্রীকান্ত মোহতা, আবির চট্টোপাধ্যায়, যিশু সেনগুপ্ত, মমতাশঙ্কর, ‘চৌরঙ্গী‌’‌র লেখক মণিশঙ্কর মুখোপাধ্যায় স্বয়ং এবং প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। মণিশঙ্কর মুখোপাধ্যায় ওরফে শংকর বললেন, তাঁর যে কোনও সৃষ্টি তাঁর কাছে সন্তানের মতো। কন্যাকে কোথাও দান করলে গোত্রনাশ হওয়ার যে আশঙ্কা থাকে, সেটা এক্ষেত্রে তিনি অনুভব করেননি, তাই সগোত্র সৃজিত মুখোপাধ্যায়কেই তাঁর উপন্যাসের কপিরাইট দিয়েছেন!‌ ‌
লেখকের স্নেহপূর্ণ রসিকতায় আপ্লুত সৃজিত জানালেন এই বইটি ছোটবেলায় পড়েই তাঁর প্রথম কলকাতার প্রেমে পড়া!‌ তখনও সুমনের ‘তোমাকে চাই‌’‌ তাঁর জীবনে আসেনি। এরপর ‘চৌরঙ্গী‌’র চরিত্রাভিনেতাদের নাম ঘোষণা করলেন পরিচালক। ‘‌স্যাটা বোস’‌-‌এর চরিত্রে দেখা যাবে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়কে, ‘‌শংকর’‌-‌এর চরিত্রে আবির, ‘‌অনিন্দ্য পাকরাশি’র‌ ভূমিকায় যিশু, এবং ‘‌মিসেস পাকরাশি’‌র চরিত্রে দেখা যাবে মমতাশঙ্করকে।

এছাড়াও দুটি গুরুত্বপূর্ণ চরিত্র ‘‌করবী’‌ ও ‘মার্কো পোলো‌’‌র ভূমিকায় রয়েছেন জয়া আহসান এবং অঞ্জন দত্ত।‌ চরিত্রগুলো একরকম থাকলেও, সমসাময়িক আর্থসামাজিক অবস্থানেই এগোবে ছবির চিত্রনাট্য। অর্থাৎ ২০১৮’‌র সময়টাই সৃজিতের ‘‌চৌরঙ্গী’‌র প্রেক্ষাপট।
রসিকতায় কম গেলেন না স্যাটা বোস ওরফে প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়ও। পরিষ্কার চ্যালেঞ্জ ছঁুড়ে দিলেন সৃজিতের দিকে। এবার প্রযোজক হয়ে সৃজিত বুঝতে পারবেন সিনেমা বানানোর ঠ্যালা কাকে বলে!‌ ছবি মুক্তির আগে এতদিন সৃজিতের ছেলেমানুষী বায়না শ্রীকান্তকে সামলাতে হয়েছে, এবার দেখা যাক ও কী করে!‌ অমায়িক হেসে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলেন সৃজিত। প্রসেনজিৎ তখনও অপ্রতিরোধ্য!‌ ‘এসভিএফ‌’‌-‌এর সঙ্গে যতই প্রণয় বা পরিণয় হোক না কেন, সৃজিতের ‘লাভস্টোরি‌’‌-‌তে যে তিনি, আবির এবং যিশুও আছেন এবং থাকবেন স্পষ্টই জানিয়ে দিলেন!‌
এর আগে ‘‌চৌরঙ্গী’‌র চলচ্চিত্রায়ণ যখন হয়েছিল তখন ‘স্যাটা বোস‌’‌-‌এর চরিত্রে ছিলেন স্বয়ং মহানায়ক উত্তমকুমার!‌ তুলনা বা সমালোচনার কথা ভেবে বিন্দুমাত্র বিচলিত নন প্রসেনজিৎ। ‘‌অটোগ্রাফ’‌ বা ‘জাতিস্মর‌’‌-‌এও এই ধরণের সম্ভাবনা ছিল, কিন্তু সৃজিতের ওপর অগাধ আস্থা তাঁর তখনও ছিল, এখনও আছে। বেশ আত্মবিশ্বাসের সঙ্গে জানালেন প্রসেনজিৎ চট্টোপাধ্যায়। মমতাশঙ্কর, আবির এবং যিশুর বক্তব্যেও স্পষ্ট হল সৃজিতের প্রতি ভরসা।
ছবির সঙ্গীতের দায়িত্ব নিচ্ছেন অনুপম রায়। জুলাইয়ের মাঝামাঝি শুরু হবে ‘চৌরঙ্গী‌’‌র শুটিং। কলকাতার অলিগলি, চৌরঙ্গীর আশেপাশের চরিত্র হয়তো বদলেছে, বদলায়নি নস্টালজিয়া, বদলায়নি ‘শাজাহান‌’‌ হোটেলের স্মৃতি। সেই স্মৃতিকে উসকে দিতেই এবার রেডি স্টেডি গো পরিচালক থেকে প্রযোজকের জার্সি গায়ে সৃজিত মুখোপাধ্যায়।‌‌‌‌

৫০ বছর আগের ‘চৌরঙ্গী‌’‌ ছবিতে ‘‌স্যাটা বোস’‌ উত্তমকুমার ।‌‌‌‌​টিম চৌরঙ্গী ;‌ ছবির ঘোষণায় লেখক শংকরের সঙ্গে আবির, প্রসেনজিৎ, সৃজিত, মমতাশঙ্কর, যিশু। ছবি :‌ সুপ্রিয় নাগ

জনপ্রিয়

Back To Top