• স্টার জলসার  ‘‌ডান্স ডান্স জুনিয়র’ -‌এ‌ বিশেষ বিচারকের ভূমিকায় কেমন লাগল?
•• খুব ভালো কাটল ছোট ছোট প্রতিযোগীদের সঙ্গে। বেশ কিছু নতুন প্রতিভার পারফরমেন্স দেখে আমি সত্যিই উচ্ছ্বসিত। অনেক দিন পর দাদা মিঠুন চক্রবর্তীর সঙ্গে অনেকটা সময় কাটালাম। কেমন করে যে সময় কেটে গেল বুঝতে পারিনি।
• রিয়্যালিটি শো বিচারকের ভূমিকায় ছোট পর্দায় কেমন লাগে?
•• বিচারকের ভূমিকায় অসম্ভব আনন্দ অনুভব করি। চোখের সামনে একেবারে সুপ্ত প্রতিভা যখন প্রতিযোগিতায় জিতে নিজেদের প্রতিভার স্বীকৃতি পায় তখন বিচারক হিসেবে অন্যরকম আনন্দ হয়। আজকের দিনে রিয়্যালিটি শো থেকেই উঠে এসেছে অনেক নাচের, গানের, অভিনয়ের প্রতিভা। রিয়‌্যালিটি শো না থাকলে আজকে যারা ইন্ডাস্ট্রিতে নাম করেছে তাদের অনেককেই পেতাম না। যদি রিয়েলিটি শোয়ের প্লাটফর্ম না থাকতো এরা হয়তো সুযোগই পেত না। এই ডান্স ডান্স জুনিয়রে বাংলার বিভিন্ন প্রান্ত থেকে প্রতিযোগীরা এসেছে। প্রত্যন্ত গ্রামের অনেক প্রতিযোগী আছে যারা এই শো না হলে তাদের প্রতিভার প্রকাশই হতো না। এই রিয়েলিটি শোর জন্য অনেক পরিবারের আমূল পরিবর্তন ঘটেছে। 
• এই শোতে দাদা (মিঠুন চক্রবর্তী)-‌র সঙ্গে স্টেজে কাটানোর অভিজ্ঞতা?
• দাদা আমার অন্যতম প্রিয় অভিনেতা। দাদার সঙ্গে স্টেজ শেয়ার করা সব সময় আনন্দের। একটা সময় দাদার ‘‌কসম পয়দা করনে বালে কি’‌, ‘‌ডান্স ডান্স’‌, ‘‌ডিস্কো ডান্সার’‌ ছবিগুলো বার বার দেখতাম। ফাইনালি একটি ছবিতে নায়িকা ছিলাম, ছবিটি যে কোন কারনে এখন মুক্তি পায়নি। মিঠুন চক্রবর্তী অন্যতম সেরা পুরুষ আমাদের ইন্ডাস্ট্রির। হি ইজ দ্য ট্রু সন অব দ্য সয়েল। দাদা আমার কাজের সব সময় প্রশংসা করেন। আগে উটিতে ছবির শুটিং হলেই মোনার্ক হোটেলে উঠলেই দাদা ভাবী ছেলেদের সঙ্গে দারুন সময় কাটতো। বহুদিনের সম্পর্ক। একই রকম আছেন দাদা। স্টেজে যেতেই স্নেহ ভালোবাসায় ভরিয়ে দিলেন।
• ডান্স ডান্স জুনিয়রে আজকের শুটিং পর্ব কিছু শেয়ার করুন?
•• আজকের শুটিং পর্ব! (মুখে হাসি নিয়ে) আমি কি বলবো। এক কথায় আমি অবাক হয়েছি ছোট ছোট বাচ্চাদের প্রতিভার ভান্ডার দেখে। যে খুদে দুজন সঞ্চালনা করছে লাড্ডু এবং উদিতা, বড় মিষ্টি। দেখবেন ও একদিন বড় অভিনেতা হবে। কমিক টাইমিং সব কিছু অসাধারণ। আমি সব কিছু বলছি না এখনই, আপনারা নিজেরাই দেখবেন কত মজা হয়েছে আজকের শুটিং এ। দুজন বিচারক শ্রাবন্তী  ও সোহম দুজনের সঙ্গে সুন্দর সময় কাটলো। 
• ছবিতে অভিনয়ে দেখা যাচ্ছে না কেন? 
•• আমি দুটো ছবিতে সই করেছি। একটা কেজিএফ, এই মাসে শুরু হবে। আর একটা ওয়েলকাম সিরিজে আগামী মার্চে শুরু হবে। কাজ অনেক আসে তবে করব কি করব না ভেবেই সময় চলে যায়।
• ৯০ দশকের আপনার অভিনীত ছবির গান আবার রিক্রিয়েট হচ্ছে। কেমন লাগছে? 
•• ভাল কথা এটাই যে, আমার অভিনীত এবং পারর্ফম করা বেশিরভাগ গান আবার নতুন করে তৈরি হচ্ছে। ‘‌টিপ টিপ’‌ থেকে শুরু করে ‘‌আঁখিওসে গোলি মারে’‌ সব গানই প্রায় রিমিক্স হয়েছে। এই সমস্ত গান টাইমলেস বলতে পারেন। যতো আমার গানের রিক্রিয়েট হবে ততই আমার ভাল। লোকে বেশি বেশি আমাকে মনে রাখবে।
• নতুন যারা অভিনয়ে আসতে চায় তাদের কোন মেসেজ?
•• এই জগৎটা অতটা সহজ জায়গা নয়। এলাম, ক্যামেরার সামনে দাঁড়ালাম আর অভিনেতা হয়ে গেলাম এমনটা নয়। বাইরে থেকে সকলে ‘‌ওকে’‌ টেকই দেখে, কিন্তু এর পিছনের রিটেক এবং পরিশ্রম যে প্রয়োজন একটা টেকের জন্য সেটা কেউ দেখে না। সত্যি সত্যি যদি তোমার মধ্যে প্রতিভা থাকে পরিশ্রমী এবং একাগ্র হও, কেউ তোমাকে আটকাতে পারবে না এটা আমি মনে করি। 

কলকাতায় স্টার জলসার ‘‌ডান্স ডান্স জুনিয়র’‌-‌এ বিচারক হয়ে এসে বললেন রবিনা ট্যান্ডন। ছবি— সঙ্কর্ষণ বন্দ্যোপাধ্যায়

জনপ্রিয়

Back To Top