অদিতি রায়: ২০১৮’‌র প্রথম হিট বাংলা ছবি ‘‌আসছে আবার শবর’‌ এবং পরপর সাতটা হিট ছবির নির্দেশক অরিন্দম শীল এবার প্রযোজকের ভূমিকায়। একই সঙ্গে পরিচালকের ‘হট সিট‌’‌-‌এও অবশ্য তিনিই। ছবির নাম ‘‌বালিঘর’‌। সুচিত্রা ভট্টাচার্যের ‘ঢেউ আসে ঢেউ যায়‌’‌ উপন্যাস অবলম্বনে এই ছবি বানাচ্ছেন অরিন্দম। অরিন্দমের ‘‌নাথিং বিয়ন্ড সিনেমা’র সঙ্গে যৌথ প্রযোজকের ভূমিকায় বাংলাদেশের ‘‌বেঙ্গল ক্রিয়েশনস’। ‘‌বাংলাদেশের শিল্প সংস্কৃতির দুনিয়ায় বিখ্যাত নাম আবুল খৈর ভাই প্রথমে শুধুমাত্র পরিচালনার প্রস্তাবই দিয়েছিলেন আমাকে, পরে আমার প্রোডাকশন হাউসের কথা এবং তার কাজকর্মের কথা জেনে একসঙ্গে ছবি প্রযোজনা করতে বলেন। আবুল ভাইয়ের কাজকর্মের খ্যাতি আমার অজানা ছিলনা, আমিও রাজি হয়ে যাই।’‌ জানালেন অরিন্দম।
‘‌বালিঘর’‌-‌এর গল্প আমাদের প্রত্যেকের জীবনের আয়না। আপাত দৃষ্টিতে এটা একটা পূনর্মিলনের গল্প মনে হলেও, এই পূনর্মিলন নিজের সঙ্গে, চেতনার সঙ্গে, জীবনের সঙ্গে, প্রতিটা সম্পর্কের সঙ্গে। বলছেন অরিন্দম। দুই বাংলার জন্যও এই গল্প খুবই প্রাসঙ্গিক। এপার-‌ওপারের সীমানা যতই কাঁটাতার দিয়ে বিচ্ছিন্ন হোক না কেন, আবেগ, অনুভূতি, অভিব্যক্তিতে বড়ই একরকম দুই বাংলার মানুষ। সেকারণেই বেছে নেওয়া ‘‌ঢেউ আসে ঢেউ যায়’‌। সুচিত্রা ভট্টাচার্যের উপন্যাস নিয়ে ছবি তৈরি করতে গিয়ে ওঁকেই সবথেকে বেশি ‘‌মিস’‌ করছেন। আবেগমথিত কণ্ঠ পরিচালকের।
অভিনেতা নির্বাচন নিয়েও চেনা ছক ভেঙেছেন অরিন্দম। আবির চট্টোপাধ্যায়কে এমন একটা চরিত্রে দেখবেন দর্শক, যা আগে কখনও দেখেননি, ভাবতেও পারেননা। আবিরের সঙ্গে পার্ণো মিত্রর জুটিও একটা নতুন স্বাদ নিয়ে আসবে, দাবি পরিচালকের।‌ আফরিন শুভ বাংলাদেশের নামী তারকা, তাঁর স্টারডম ভেঙে দিয়ে একেবারে মাটির কাছাকাছি একটা চরিত্র তাঁকে দিয়েছেন পরিচালক, যেখানে এই ধরণের চরিত্রে অভ্যস্ত অনির্বাণ ভট্টাচার্যকে বেশ অভিজাত চরিত্রে দেখবেন দর্শক। অনির্বাণের বিপরীতে রয়েছেন বাংলাদেশের তিষা। রাহুল বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিপরীতে থাকছেন বাংলাদেশের আর এক অভিনেত্রী নৌশাবা। এভাবেই কমফর্ট জোনের বাইরে নিয়ে গিয়ে অভিনেতাদের চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিচ্ছেন পরিচালক। আসলে অরিন্দম নিজেও অভিনেতা হিসেবে চ্যালেঞ্জ নিতে পছন্দ করেন। কথায় কথায় জানিয়ে দিলেন অঞ্জন দত্তর আগামী ছবিতে একদম অন্য ধরণের বেশ বড় একটি চরিত্রে অনেকদিন পর অভিনয় করতে চলেছেন তিনি।
‘বালিঘর‌’‌-‌এ বিক্রম ঘোষের সঙ্গে সঙ্গে বাংলাদেশের ‘‌চিরকুট’‌ ব্যান্ড সামলাবে সঙ্গীতের দায়িত্ব। চিত্রগ্রহণে থাকবেন সৌমিক হালদার। শুটিংয়ের অনুমতির জন্য ইতিমধ্যেই বাংলাদেশ ও ভারত সরকারের কাছে আবেদন জানানো হয়েছে। মার্চের মাঝামাঝি শুটিং শুরুর ইচ্ছা রয়েছে অরিন্দমের। দুই বাংলাতেই বাণিজ্যিক ভাবে মুক্তি পাবে ‘‌বালিঘর’‌। এপারের পরিবেশনার দায়িত্বে থাকবে ‘‌এসভিএফ’। পদ্মা ও গঙ্গার অনন্ত চরে গড়ে উঠছে ‘বালিঘর‌’‌, অপেক্ষা সামান্যই।‌‌

‘‌বালিঘর’‌-‌এর সাংবাদিক সম্মেলনে রাহুল, পার্ণো, আফরিন শুভ। ছবি :‌ সুপ্রিয় নাগ

জনপ্রিয়

Back To Top