আজকালের প্রতিবেদন

রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় আরও ৫৬২ জন করোনা থেকে সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে ছুটি পেয়েছেন। এখনও রাজ্যে সুস্থ হয়ে ওঠার সংখ্যা ৭,৮৬৫ জন। তাতে কিছুটা হলেও স্বস্তি পেয়েছেন স্বাস্থ্যকর্তারা। শনিবার স্বাস্থ্য দপ্তরের প্রকাশিত বুলেটিনে জানানো হয়, রাজ্যে সুস্থতার হার বেড়ে হল ৫৮.‌১২ শতাংশ। রোগীকে দ্রুত সুস্থ করতে এক–‌একটি হাসপাতালের কোভিড টিমের চিকিৎসকেরা নিজেদের পড়াশোনা ও দক্ষতাকে কাজে লাগাচ্ছেন। রাজ্যে ইতিমধ্যে প্লাজমা থেরাপির ট্রায়ালও শুরু হয়ে গেছে। সরাসরি স্বাস্থ্য দপ্তরও নজরদারি চালাচ্ছে। তার ফলে দ্রুতগতিতে সুস্থতার হার বাড়ছে বলে মত বিশেষজ্ঞদের। সুস্থর থেকে নতুন আক্রান্তের সংখ্যাও এদিন কমে হয়েছে ৪৪১ জন। রাজ্যে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১৩ হাজার ৫৩১ জন। তার মধ্যে কমেছে সক্রিয় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা। বর্তমানে ৫ হাজার ১২৬ জন অ্যাক্টিভ বা সক্রিয় করোনা রোগী। একদিনে করোনা টেস্টের সংখ্যা ১০ হাজার ছাড়িয়ে গেছে। এদিন পরীক্ষার সংখ্যা ১০ হাজার ৩৩০টি। রাজ্যে এখনও পর্যন্ত মোট নমুনা পরীক্ষার সংখ্যা ৩ লক্ষ ৯০ হাজার ৯৪২টি। পজিটিভিটি রেট ৩.‌‌৪৬ শতাংশ। চিকিৎসকদের মতে, পজিটিভ হওয়ার সংখ্যা সেই অর্থে বৃদ্ধি পায়নি। তবে এদিনও কলকাতায় করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ১২৭ জন ছিল। অন্যান্য জেলার তুলনায় যথেষ্ট বেশি। কলকাতায় আরও কীভাবে করোনার প্রকোপ কমিয়ে আনা যায়, সেই চেষ্টাই চালাচ্ছে স্বাস্থ্য দপ্তর থেকে কলকাতা পুরসভা। এদিন বসিরহাট জেলা হাসপাতালেও শুরু হয়েছে করোনার পরীক্ষা। রাজ্যে  ল্যাবরেটরির সংখ্যা বেড়ে হল ৪৯টি। রাজ্যে গত ২৪ ঘণ্টায় ১১ জনের মৃত্যু হয়েছে। মৃতের সংখ্যা বর্তমানে ৫৪০ জন। কোথাও কোনও কোভিড রোগীর মৃত্যু হলে তা কেন হল, কী সমস্যা ছিল, সঙ্কটজনক পরিস্থিতিতে আর কী করা যেতে পারত, এই সমস্ত বিষয়ে পুঙ্খানুপুঙ্খ খতিয়ে দেখছে স্বাস্থ্য দপ্তর। কোভিডে একটিও যেন মৃত্যু না হয়, সেটাই এখন মূল লক্ষ্য স্বাস্থ্য দপ্তরের।
এদিকে দুই মাছ ব্যবসায়ীর করোনা আক্রান্ত হওয়ায় এদিন থেকে সাতদিনের জন্য বন্ধ করে দেওয়া হল কেষ্টপুরের মিশন বাজার।

কলকাতায়। ছবি: পিটিআই

জনপ্রিয়

Back To Top