সলমন খান জামিন পেলেন। কৃষ্ণসার হরিণ হত্যা মামলায় রেহাই পেয়ে গেলেন, অবশ্যই বলা যাবে না। নায়কের আইনজীবীর সওয়াল, সলমনের সঙ্গে আগ্নেয়াস্ত্র ছিল, এটাই তো প্রমাণিত হয়নি। এলোমেলো সাক্ষ্যের সূত্রে শাস্তি তাই সুবিচার নয়। বলিউড থেকে এসেছে হিরোর জন্য তুমুল সমর্থন। জয়া বচ্চন বললেন, ওকে চিনি, এমন কাজ করতেই পারে না। এত বেশি শাস্তি মেনে নেওয়া যায় না। সোনাক্ষী সিনহার ক্ষোভ, সফল তারকা বলেই কি শাস্তির কোপ নেমে আসছে সলমনের ঘাড়ে?‌ সিমি গারেওয়াল বলছেন, অবিচারের এর চেয়ে বড় নমুনা আর পাওয়া যাবে না। বিশ্বাস, নির্দোষ প্রমাণিত হবেন নায়ক। শত্রুঘ্ন সিনহা বলেন, এত মিষ্টি ও সাচ্চা ছেলে বলিউডে দুটি নেই। পাশাপাশি, মাথায় হাত প্রযোজকদের। প্রায় হাজার কোটি টাকা লগ্নি হয়ে রয়েছে সুপারস্টারকে ঘিরে। এত ‘‌সামান্য’‌ অভিযোগে হিন্দি ফিল্ম ইন্ডাস্ট্রির এত বড় ক্ষতি হওয়া মানা যায় না। সাধারণত, যে কোনও বিষয়ে দ্বিমত পাওয়া যায়। এক্ষেত্রে নয়। গোটা বলিউড সলমনের পক্ষে। কিন্তু, এটা তো একদিকের গল্প। বহু মানুষ জোরালো প্রশ্ন তুলে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন। কৃষ্ণসার হরিণ বিরল প্রজাতির প্রাণী। মধ্যরাতে বিনোদন–‌সফরে বেরিয়ে একজন এমন অপরাধ করবেন, তবু ছেড়ে দিতে হবে?‌ যেহেতু তিনি সুপারস্টার, সাত খুন মাফ?‌ দেশে আইনকানুন নেই?‌ এই নায়কই মত্ত অবস্থায় গাড়ি চালিয়ে ফুটপাথবাসীদের মৃত্যু ঘটিয়েছিলেন, কীভাবে যেন ছাড়া পেয়ে গেছেন। এবারও তেমন হলে প্রমাণিত হবে যে, আইনের চোখে সবাই সমান নয়। সলমন খান লক্ষ লক্ষ মানুষকে বিনোদন দিয়েছেন, প্রযোজকদের ‘‌লক্ষ্মী’‌‌ হয়ে উঠেছেন, শোনা যায় মানুষ হিসেবে ‘‌মিষ্টি ও সাচ্চা’‌, সেজন্য উচিত শাস্তি হবে না তাঁর?‌ আমাদের শুধু একটা কথা বলার আছে। বিচারক ক্ষত্রি তাঁর রায়ে বলেছেন, সলমন বিখ্যাত নক্ষত্র, অনেকের কাছে দৃষ্টান্ত, সেজন্যই দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি। আইনের চোখে যদি সকলেই সমান হন, সলমনকেই বা বিখ্যাত বলে শাস্তি পেতে হবে কেন?‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top