পরীক্ষা পে চর্চা তিনি চর্চার মধ্যেই থাকেন। চায়ে পে চর্চা। এবার পরীক্ষা পে চর্চা। দিল্লির ‌তালকোটরা স্টেডিয়ামে জড়ো করা হল অনেক ছাত্রছাত্রীকে। ইউজিসি–র নির্দেশ, যেন দেশের টেলিভিশনে ‘‌চর্চা’‌ শোনেন ছাত্রছাত্রীরা। বাংলার শিক্ষামন্ত্রী অবশ্য বলেই দিয়েছিলেন পরীক্ষা আছে, পড়াশোনা আছে, ওই লেকচার শোনার সময় নেই ছাত্রছাত্রীদের। কোনও সরকারি বা সরকার–পোষিত স্কুলে, কলেজে টেলিভিশনে ওই অনুষ্ঠান দেখানো হবে না। যা–ই হোক, চর্চা হল। পরীক্ষা নিয়ে যিনি ভাষণ দিলেন, তাঁর যোগ্যতা নিয়ে সংশয় নেই। দিল্লি বিশ্ববিদ্যালয় থেকে স্নাতক ‘‌হয়েছিলেন’‌, কোনও নথিপত্র নেই। অনুগত বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ জানিয়ে দিয়েছেন, বিএ পাস নিশ্চয় করেছিলেন, তবে তার কোনও নথি পাওয়া যাচ্ছে না। ‘‌পরীক্ষা পে চর্চা’‌য় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদি বলতেই পারতেন, তোমরা পরীক্ষা দেবে, তবে ফলের যেন কোনও প্রমাণ না থাকে!‌ বললেন, এদেশের ছেলেমেয়েরা ছোটবেলা থেকেই রাজনীতিক। ওরা জানে, কখন কী করতে হয়!‌ আশা করি পরীক্ষা পে চর্চা আবার হবে, সময় আছে তো ১৫ মাস। কী কী বলতে পারেন, অনুমান করতে পারি। শোনো ছাত্রছাত্রীরা, ভবিষ্যৎ নাগরিকেরা, কখনও কোনও প্রশ্নের উত্তর দেবে না। কঠিন প্রশ্নের ধারকাছ দিয়ে যাবে না। যখন যা ইচ্ছা হবে বলে যাবে (‌পরীক্ষাকেন্দ্রে বা স্কুলে লিখে যাবে)‌। কিন্তু প্রশ্নের উত্তর দেবে না। শেখো, আমাকে দেখে। রাফায়েল চুক্তিতে কত টাকা খরচ হচ্ছে, আমি প্যারিস যাওয়ার পরেই কত বেড়ে গেল, বিরোধীরা গাদা গাদা প্রশ্ন করছে। আমি উত্তর দিচ্ছি না। আমি, আমরা কত সজাগ, কত কঠোর। তবু, কাশ্মীরে চার বছরে আগের চেয়ে অনেক বেশি জওয়ান কেন মারা গেল পাক জঙ্গিদের হাতে, ফালতু প্রশ্ন করছে। জবাব দিচ্ছি না। দেব না। নীরব মোদি, মেহুল চোকসি— এরা ভাল লোক। ব্যাঙ্কের মাত্র সাড়ে এগারো হাজার কোটি টাকা গায়েব করে কী করে দেশ ছেড়ে পালাল ওরা?‌ কী করে পালিয়েছিল বিজয় মালিয়া?‌ উত্তর দেব না। প্রিয় ছাত্রছাত্রীরা, শিখে নাও, কঠিন প্রশ্নের উত্তর দিতে নেই। তাতে যদি তোমাদের পরীক্ষার ফলের প্রমাণ–নথি না–ই পাওয়া যায়, ক্ষতি নেই।‌‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top