সবচেয়ে শক্তিশালী রাষ্ট্র আমেরিকা। আমেরিকার রাষ্ট্রপ্রধানের ক্ষমতা বিপুল। মার্কিন প্রেসিডেন্টকেই বলা হয় পৃথিবীর ‘‌সবচেয়ে ক্ষমতাবান মানুষ’‌।‌ ধনকুবের ডোনাল্ড ট্রাম্প সম্পর্কে সমালোচনার সীমা নেই। শুধু অভিবাসীরা নন, দেশের বহু মানুষ ক্ষুব্ধ, মুখর। কিন্তু, তিনি প্রেসিডেন্ট পদে নির্বাচিত। সেই নির্বাচনে পুটিনের রাশিয়া কলকাঠি নেড়েছিল, তদন্ত এখনও চলছে। সোশ্যাল মিডিয়াকে অন্যায়ভাবে ব্যবহার করা হয়েছিল, অভিযোগের পক্ষে অনেক প্রমাণ। তবে, সবার ওপরে নির্বাচন সত্য, ট্রাম্প জিতে এসেছেন। মেক্সিকো সীমান্তে পাঁচিল তোলার জন্য এত কোটি ডলার চাই, যুদ্ধের প্রস্তুতির জন্য এত কোটি ডলার চাই, বলেই চলেন। তাঁর চাপে সরকারি কাজ বন্ধ হয়ে যায়, কর্মীরা বেতনহীন থাকেন দীর্ঘ সময়, বিরোধীরা সোচ্চার, তিনি নির্বিকার। তিনি নির্বাচিত। সম্প্রতি ব্রিটেন সফরে গিয়েছিলেন। রানি এলিজাবেথের সঙ্গে দেখা করার সময় প্রথা ভেঙে পিঠে হাত রাখেন। রানিকে স্পর্শ করার প্রথা এ পর্যন্ত কেউ ভাঙেননি, হইচই হল ব্রিটেনে। তাতে তাঁর কিছু এসে যায় না। বাকিংহাম প্যালেসে যখন যাচ্ছেন, রাস্তার দুপাশে ছিল পোস্টারে ধিক্কার। বিশাল ট্রাম্প–‌বেলুন ওড়ানো হয়েছিল। ট্রাম্প বললেন, ‘‌কই দেখিনি তো!‌’‌ লন্ডনের মেয়র সাদিক খান ঘোষিত ট্রাম্প–‌বিরোধী। অনুষ্ঠানে যাননি। মার্কিন প্রেসিডেন্ট বললেন, ‘অযোগ্য লোক, লন্ডনের আইন–‌শৃঙ্খলার অবনতি ওর জন্যই।’‌ বিদেশের রাজধানীতে সেই দেশের রাজধানীর মেয়রকে ‘‌অযোগ্য’‌ আর কোনও রাষ্ট্রনেতা বলতে পারবেন?‌ তবে, তাঁর কিছু যায় আসে না। দেশে ফিরেই ধমক দিলেন নাসাকে:‌ ‘‌বাজে অভিযানে সময় ও অর্থের অপচয় না করে নাসা প্রতিরক্ষার হয়ে কাজ করুক। মঙ্গলে, যার অংশ চাঁদ, অভিযান করুক।’‌ মঙ্গলের অংশ চাঁদ!‌ বললেন। তিনি নির্বাচিত।

জনপ্রিয়

Back To Top