কোনও নেতা মুখ ফস্কে ভুল কথা বলে ফেললেন, ব্যাপারটা তা নয়। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী দিল্লিতে নির্বাচনী সভায় বললেন, কংগ্রেস প্রচার করছে যে, তিনি সেনা–‌সাফল্যকে ভোটে ব্যবহার করছেন। কিন্তু প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী রাজীব গান্ধী নৌবাহিনীর জাহাজ আইএনএস বিরাটে চড়ে ছুটি কাটাতে গিয়েছিলেন। নরেন্দ্র মোদির অভিযোগ, যুদ্ধজাহাজ নিয়ে দশ দিনের প্রমোদ সফর করেছিলেন সপরিবার রাজীব। সঙ্গে ছিলেন সোনিয়ার মা ও বোন, যাঁরা ইতালির নাগরিক। যুদ্ধজাহাজে বিদেশিদের চড়াটা অদ্ভুত, অন্যায়, যা ঘটিয়েছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। রাহুল গান্ধী বা তাঁর দল কিছু বলার আগেই মোক্ষম জবাব দিলেন নৌবাহিনীর দুই প্রাক্তন প্রধান–‌সহ চার অফিসার, যাঁরা প্রত্যক্ষদর্শী, ওয়াকিবহাল। আইএনএস বিরাট–‌এর তৎকালীন কমান্ডারও জানালেন, মিথ্যা অভিযোগ করছেন বর্তমান প্রধানমন্ত্রী। প্রথমত, ছুটি কাটাতে নয়, কাজের সূত্রেই গিয়েছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। দ্বীপ উন্নয়ন বিষয়ে বার্ষিক বৈঠক হয় একবার আন্দামানে, পরের বার লাক্ষাদ্বীপে। প্রধানমন্ত্রীর থাকার কথা। দশদিন নয়, তিনদিনের জন্য গিয়েছিলেন রাজীব, তিরুবনন্তপুরম থেকে। সেই বৈঠকে অনেক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছিল। স্থানীয় মানুষের সঙ্গেও কথা বলেছিলেন প্রাক্তন প্রধানমন্ত্রী। স্বাভাবিক সুরক্ষার ব্যবস্থা ছিল। সরকারি সফরে প্রধানমন্ত্রীর স্ত্রী থাকতে পারেন সঙ্গে, সোনিয়া গিয়েছিলেন। কিন্তু, তাঁর মা বা বোন যাননি। কোনও বিদেশি নাগরিকের দেশের যুদ্ধজাহাজে চড়ার অভিযোগ চূড়ান্ত মিথ্যা। এই সূত্রে বেরিয়ে এল একটা তথ্য। যুদ্ধজাহাজ আইএনএস সুমিত্রা–‌য় প্রধানমন্ত্রী মোদির সঙ্গে ছিলেন অভিনেতা অক্ষয়কুমার। যিনি কানাডার নাগরিক। মোদি বুঝে গিয়েছেন, আসন কমবে অনেক। শরিক জুটিয়ে যদি কোনওরকমে সরকার রাখা যায়। মরিয়া মোদির একমাত্র আশ্রয়— ডাহা মিথ্যা। ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top