উত্তরপ্রদেশের এক মন্ত্রী বলেছেন, ধর্ষণ নিয়ে এত কথা, আসল কথাটা কেউ বলছেন না, যে, প্রধানত দায়ী মেয়েদের পোশাক। অসভ্য পোশাক দেখে প্ররোচিত হয়ে কিছু লোক, ধর্ষণ করার দিকে যায়। সব জায়গায় পোশাক–পুলিশ থাকা ভাল। যারা অসভ্য পোশাক দেখলেই, মেয়েদের ধরে নিয়ে যাবে। বাড়ির লোকেদের দিয়ে মুচলেকা লিখিয়ে নেবে, মেয়েটা আর কখনও বাজে পোশাক পরবে না। পরলেই, শাস্তি। কথাটা নানাভাবে বলা হয়েছে, দু–‌দিনের হইচই, সমালোচনা, তারপর চুপ। মনে হয়, আমাদের মধ্যে বেশ কিছু মানুষ নীতি পুলিশি সমর্থন করেন। মাত্র কিছুদিন আগে কলকাতায় বহুতল আবাসনের অফিসে এক বাসিন্দার উচ্চশিক্ষিত অল্পবয়সি মেয়ে প্লাম্বারের খোঁজে গিয়েছিলেন। কমিটির কর্তা শুনতে চাননি, কারণ মেয়েটার পরনে শর্টস। শর্টস পরেও ভদ্র থাকা যায়, না–‌পরেও অভদ্র থাকা যায়। হায়দরাবাদে তরুণী চিকিৎসক ধর্ষিত ও খুন হওয়ার পর, কলকাতায় দু–‌একটি পোস্টার দেখা গেল। লেখা আছে, ধর্ষণ রুখতে মেয়েদের অশ্লীল পোশাক পরা বন্ধ করতে হবে। কারা দিল?‌ ‘‌বাঙালি মহিলা সমাজ’‌। নাম শুনিনি। আন্দাজ করা যায়, এক বিশেষ দলের মহিলা বাহিনীর অঘোষিত শাখা হতে পারে। কলকাতা তো, পাশেই পাল্টা পোস্টার পড়েছে। মনে আছে, মাত্র কিছুদিন আগে, যাদবপুরের মেয়েদের পোশাক নিয়ে জঘন্য কথা বলেছিলেন বিজেপি–‌র এক বিশিষ্ট নেতা। যাদবপুরে, অন্যান্য শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রীরা আন্দোলন করেন, ‘‌অসভ্য’‌ পোশাক কখনও দেখেছি কি? দিল্লির নির্ভয়ার পোশাক ‘‌অসভ্য’‌ ছিল?‌ হায়দরাবাদের তরুণী চিকিৎসকের পোশাক ‘‌অসভ্য’‌ ছিল?‌ সম্প্রতি রাজস্থানে শিশুদেরও ধর্ষণ করার ঘটনা ঘটে। ‘‌অসভ্য’‌ পোশাক? দিল্লিতে প্রৌঢ়া ধর্ষিত হলেন। ‘‌অসভ্য’‌ পোশাক?‌ ‘‌বাঙালি মহিলা সমাজ’‌–‌এ‌ কারা আছে তদন্ত করে ব্যবস্থা হোক। ‘‌পোশাক’‌–‌এর জন্য ধর্ষণ?‌ কুৎসিত প্রচারকদের শাস্তি চাই।

জনপ্রিয়

Back To Top