ভয়াবহ করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে অবিরাম লড়াই করছেন ডাক্তার, স্বাস্থ্যকর্মী, পুলিশ, বিদ্যুৎ, সাফাই, অত্যাবশ্যকীয় ক্ষেত্রের সঙ্গে জড়িতরা। দিলীপবাবুর মতো কিছু লোক অবিরাম দুঃসহ অপপ্রচার করে যাচ্ছেন। আমরা একটু ভিন্ন বিষয়ে, ভিন্ন ঘটনাতে যেতে চাইছি। ছত্তিশগড়ে। ২০১০ সালে ছত্তিশগড়ের দান্তেওয়াড়াতে মাওবাদী হামলাতে ৭৩ জন জওয়ান নিহত হয়েছিলেন। এবার, ছত্তিশগড়ের সুকমাতে, জেলার কাসলপাড়–‌মিনপা এলাকাতে ২২ মার্চ, রবিবার মাওবাদীদের গুলিতে মৃত্যু হল ১৭ জওয়ানের। জানা গেছে, তল্লাশি চালাতে গিয়েছিলেন ৫০০ জওয়ান। খবর ছিল, বলা হয়েছে, নির্দিষ্ট এলাকায় জড়ো হয়েছে বেশ কিছু মাওবাদী নেতা, কর্মীদের সঙ্গে জড়ো হয়েছিলেন, বৈঠক করছিলেন। পরিস্থিতি ভেবে তল্লাশিতে যায় বাহিনী। পৃথিবীতে, দেশে, রাজ্যে রাজ্যে সন্ত্রস্ত, বিপন্ন মানুষ। যাঁরা আক্রান্ত, যাঁরা আক্রান্ত হননি এখনও, সকলে উদ্বিগ্ন, বিপন্ন। মাও সে তুঙের চিন্তাধারা তথাকথিত মাওবাদীদের মধ্যে আছে বলে মনে হয় না। মাও কবে কোথায় বলেছেন বা লিখেছেন, মানুষ যখন চরম বিপদে, তখনও ‘‌লড়াই’‌ চালিয়ে যেতে হবে। তখন তো রাজনৈতিক নেতা ও কর্মীদের, তথাকথিত মাওবাদী নেতা ও কর্মীদেরও থাকা উচিত অতিমারীর বিরুদ্ধে যুদ্ধে। ‘‌মানুষের কথা’‌ নাকি ভাবেন, তাহলে ভয়াবহ বিপদের দিনেও কার্যকলাপ চালু রাখা হয়েছে কেন?‌ অবিরাম। মানুষের জন্য ভাবেন বলে মনে হয় না। বাহিনীর কর্তাদের কথাও বলতে হবে। একটা খবর পেলেন, সঙ্গে সঙ্গে ৫০০ জওয়ানকে নিয়ে চলে যাবেন, গুলি বিনিময় হবে, সমর্থনযোগ্য?‌ বিরতি থাকুক।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top