মুম্বইয়ে কয়েক বছর আগে এক ধর্ষণের ঘটনা নিয়ে পুলিসকে প্রবল সমালোচনার মুখে পড়তে হয়। ধর্ষিত হয়েছিলেন কলেজ ছাত্রী। খবরের কাগজে প্রচুর নিন্দা, প্রতিবেদনে ও চিঠিপত্রে। শাস্তি দূরের কথা, ধর্ষককে গ্রেপ্তার করেও উঠতে পারেনি মুম্বই পুলিস। নগরপাল সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে প্রথমেই বলেন, আপনারা একটা ছোট্ট ব্যাপার নিয়ে এত হইচই করছেন কেন?‌ তারপর দুর্ধর্ষ মন্তব্য:‌ মেয়েরা যদি আচার–আচরণে সতর্ক না হয়, মানুষের মন যদি শুদ্ধ না হয়, ধর্ষণের ঘটনা কী করে আটকানো যাবে?‌ এবার কয়েক বছর এগিয়ে একেবারে সাম্প্রতিকে আসা যাক। ভারতের মানবসম্পদ দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রী বৈদিক সম্মেলনে বললেন, ‘‌চার্লস ডারউইনের বিবর্তনবাদের তত্ত্ব সম্পূর্ণ ভুল। পড়ানোই উচিত নয় স্কুল–কলেজে। আমার কাছে অনেক তথ্য আছে, ডারউইন ভুলভাল বুঝিয়েছিলেন বিশ্ববাসীদের। মানুষ এত বছর ধরে এই ভুলটাকেই সত্য বলে মেনে এসেছে। আর মানা উচিত নয়। .‌.‌.‌ মানবসম্পদ (‌শিক্ষা)‌ দপ্তরের রাষ্ট্রমন্ত্রীর এই কথা শুনে দেশের বিজ্ঞানীরা স্তম্ভিত। ৩৮৮ জন বিশিষ্ট বিজ্ঞানী চিঠি লিখে দাবি জানালেন মাননীয় মন্ত্রীর কাছে, আপনার বক্তব্য প্রত্যাহার করে নিন। এমন অবৈজ্ঞানিক কথা যদি মানবসম্পদ মন্ত্রী বলেন, তার চেয়ে দুঃখের আর কী হতে পারে?‌ মন্ত্রী বললেন, যা বলেছি ঠিক বলেছি। যুক্তি ‘‌অকাট্য’‌, আমাদের পূর্বপুরুষদের কেউ কি দেখেছেন কোনও বানরকে মানুষ হয়ে যেতে!‌ ডারউইনের ‘‌ওরিজিন অফ স্পিসিস’‌ বিজ্ঞানের ইতিহাসে এক স্মরণীয় মাইলফলক। মন্ত্রী মহোদয়ের কথায় অবশ্য বিস্মিত না হলেও চলে। আমাদের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিজি তো বলেছেন, গণেশের মাথায় হাতির মুখই তো প্রমাণ করে, কয়েক হাজার বছর আগে প্লাস্টিক সার্জারি হত ভারতে!‌ জিজ্ঞেস করতে পারেন, মুম্বইয়ে ধর্ষণকাণ্ডের সঙ্গে মন্ত্রীর মন্তব্যের সম্পর্ক কোথায়?‌ সম্পর্ক এই যে, ওই নগরপাল এবং এই মন্ত্রী একজনই— সত্যপাল সিং।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top