বালাকোটে বিমান হানার কৃতিত্ব নিজেই নিজেকে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী। প্রচার করিয়েছেন, রাত জেগে তিনি ‘‌দেখেছেন’‌, ঠিকঠাক হচ্ছে কি না। পুলওয়ামায় ৪০ জওয়ানের মৃত্যুর ‘‌কৃতিত্ব’‌ ঘাড়ে নিতে রাজি আছেন?‌ চরম অসতর্কতা, ব্যর্থতার দায় কার?‌ এত বড় ‘‌সেনানায়ক’‌, ভোটের জন্য কি বিস্ফোরণের পথ খুলে রেখেছিলেন?‌ কোনও উত্তর নেই, কিন্তু সেনা বীরত্বের চেয়েও বড় কথা হল তাঁর কৃতিত্ব, তাঁরই বীরত্ব। উত্তরপ্রদেশের মুখ্যমন্ত্রী যোগী আদিত্যনাথ তো ভারতীয় সেনাকে ‘‌মোদি সেনা’‌ পর্যন্ত বলে দিয়েছেন। আকাশ থেকে মহাকাশ। ভোটের দিন ঘোষণা হয়ে যাওয়া সত্ত্বেও, মহাকাশে বীরত্ব প্রচারিত হয়েছে দূরদর্শনে। অভিযোগ জমা পড়েছে নির্বাচন কমিশনে, সুরাহা নেই। মহাকাশে ভারতেরই একটি অকেজো উপগ্রহ ধ্বংস করে দিয়ে, ভারত উঠে এসেছে আমেরিকা, চীন ও রাশিয়ার সঙ্গে উচ্চতম পর্যায়ে। ৩০০ কিলোমিটার দূরে উপগ্রহ ধ্বংস করে প্রমাণ করে দেওয়া হয়েছে, ভারত কত শক্তিশালী। কোন ভারত?‌ মোদির ভারত!‌ এই অভিযানের দায়িত্বে যথারীতি ছিল ডিআরডিও। সংস্থার প্রধানের ঘোষণা করার কথা। মহাকাশ বিজ্ঞানে ভারতের পদক্ষেপ শুরু প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরুর সময়েই। উল্লেখযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে ইন্দিরা গান্ধীর আমলে। এজন্য কিন্তু নেহরু বা ইন্দিরা কোনও কৃতিত্ব দাবি করেননি। বিক্রম সারাভাই প্রমুখ বিজ্ঞানীর জয়গানই শোনা গেছে। নাসা জানিয়েছে, ধ্বংস–‌হওয়া অকেজো উপগ্রহের ৪০০টি টুকরো মহাকাশে ছড়িয়ে পড়েছে, গবেষণার ক্ষেত্রে, অন্য সব কৃত্রিম উপগ্রহের ক্ষেত্রে বিপদ ঘটাতে পারে। উত্তর নেই। প্রচার। ভোট। পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ভারত সবচেয়ে বড় জয় পেয়েছে বাংলাদেশ যুদ্ধে, ১৯৭১ সালে। তারপর ভোট, ইন্দিরা কিন্তু নিজের ঢাক পেটাননি।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top