গুজরাট গণহত্যার পর নরেন্দ্র মোদি সম্পর্কে সোনিয়া গান্ধী বলেছিলেন, ‘‌মওৎ কি সওদাগর।’‌ বিজেপি নেতারা এজন্য এখনও সোনিয়ার সমালোচনা করেন। স্বয়ং সোনিয়াও এ বিষয়ে আর একটা কথাও বলেননি। কিছুটা আত্মরক্ষাত্মক অবস্থান কংগ্রেসের। কিন্তু, ভুল কিছু কি বলেছিলেন সোনিয়া?‌ প্রধানমন্ত্রী অটলবিহারী বাজপেয়ী গুজরাট নিয়ে প্রকাশ্যে বলে এসেছিলেন, মুখ্যমন্ত্রী রাজধর্ম পালন করুন। তিনি সরাতেও চেয়েছিলেন মোদিকে, আটকে দেন আদবানিরা। ভয়ঙ্কর গণহত্যার সময়ে গুজরাটের মুখ্যমন্ত্রী ছিলেন মোদি। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহ। গণহত্যায় কার্যত পৌরোহিত্য করেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী। সঙ্গী স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী। পুরভোটে বিজেপি–‌র খারাপ ফল দেখে ভীত বিজেপি সাম্প্রদায়িক উত্তেজনা উসকে দিয়ে আসন্ন বিধানসভা ভোটে জেতার ছক কষে। জিতেও যান। কলঙ্কের দাগ মুছতে নতুন অবতার মোদির। উন্নয়নের ফেরিওয়ালা। বণিকমহল, সংবাদমাধ্যমের বড় অংশ ‘‌নতুন’‌ মোদির ভাবমূর্তি চকচকে করার কাজে নেমে পড়ে। ভাইব্রান্ট গুজরাট। পরে দেখা গেল, মানুষের উন্নয়নের সূচকে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই গুজরাট অন্যান্য রাজ্যের চেয়ে পিছিয়ে। শিল্পপতিরা গুরু মেনেছিলেন মোদিকে। আশা–‌ভরসা, এমন প্রধানমন্ত্রী এলে তঁাদের বিস্তর সুবিধা হবে। আশা অমূলক ছিল না। অনেক পেয়েছেন। একদিকে যখন বিজেপি–‌র বিষাক্ত সাম্প্রদায়িক প্রচার, পাশাপাশি উন্নয়নের স্বপ্ন দেখানো। ২০১৪ সালে নির্বাচনী প্রচারে ঝঁাকে ঝঁাকে প্রতিশ্রুতি দিলেন নরেন্দ্র মোদি। যথা, বিদেশে গচ্ছিত ভারতীয়দের কালো টাকা ফিরিয়ে এনে প্রত্যেকের অ্যাকাউন্টে ১৫ লক্ষ টাকা দেওয়ার ব্যবস্থা করবেন। বাস্তব?‌ গত বছর সুইস ব্যাঙ্কে ভারতীয়দের গচ্ছিত অর্থ বেড়েছে ৫০ শতাংশ, এক টাকাও কারও অ্যাকাউন্টে জমা পড়েনি। বছরে দু কোটি কর্মসংস্থানের কথা বলেছিলেন। ৫ শতাংশও হয়নি। আর্থিক উন্নতি ঘোচাতে কিছু পরিসংখ্যান আওড়েছেন, যার সঙ্গে সাধারণ দেশবাসীর সম্পর্ক নেই। কিছু ধনপতির উন্নতি। কৃষকদের দুর্গতি বেড়েছে। নোটবন্দি করে লক্ষ মানুষের রুজি কেড়ে নিয়েছেন। দক্ষিণপন্থী অর্থনীতিবিদ পানাগেড়িয়াকে নীতি আয়োগের মাথায় বসান। অসত্যবাদী সরকারের সঙ্গে সম্পর্ক ছেদ করে তিনি চলে গেছেন। থাকতে চাননি রঘুরাম রাজন, অরবিন্দ সুব্রহ্মণ্যম। এবার অমর্ত্য সেন বললেন, গত চার বছরে ভারত ভুল দিকে বড় লাফ দিয়েছে। জঁা দ্রেজ দেখিয়েছেন, বহু–‌প্রচারিত আয়ুষ্মান প্রকল্পে মাথাপিছু বরাদ্দ ২০ টাকা!‌ উন্নয়নের ফেরিওয়ালার অবস্থা শোচনীয়। ঠিক পথে ফেরার অপেক্ষায় ভারত।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top