আইকন চাই আইকন!‌ পাওয়া যাচ্ছে না। মুঘলসরাইয়ের নাম জোর করে তাঁর নামে দেওয়া যায়, কিন্তু দীনদয়াল উপাধ্যায়কে আইকন বানানো যায় না। নাম জানেন কতজন?‌ গোলওয়ালকারের মতো সঙ্ঘ–‌মহীরুহকে সামনে আনা কঠিন, আনলেই নানা বিষয়ে তাঁর ভয়ঙ্কর বক্তব্য প্রচারিত হবে, ভোট চাওয়ার মুখ আর থাকবে না। সম্প্রতি অটলবিহারী বাজপেয়ীকে আঁকড়ে ধরার চেষ্টা করছেন মোদি ও তাঁর ঘনিষ্ঠরা। বাজপেয়ীর উত্তরসূরি মোদি, এই প্রচার বাজারে কাটছে না। প্রতি পদক্ষেপে যাঁর উল্টোপথে হাঁটছেন মোদি, তাঁর নানা সময়ের ভাষণ, মন্তব্য বর্তমান প্রধানমন্ত্রীর পক্ষে স্বস্তিকর নয়। আইকনের খোঁজে হাত বাড়ানো হয়েছে সর্দার বল্লভভাই প্যাটেলের দিকে। পৃথিবীর মধ্যে সবচেয়ে উঁচু মূর্তি স্থাপিত হচ্ছে (‌মেড ইন চায়না!‌)‌। বিজেপি বলে, নেহরুর বদলে প্যাটেল দেশের প্রধানমন্ত্রী হলে দেশের অবস্থা এত করুণ হত না!‌ ভুলিয়ে দেওয়ার চেষ্টা হয়, এই বল্লভভাই প্যাটেলই ১৯৪৮ সালে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে আরএসএস–‌কে নিষিদ্ধ ঘোষণা করেছিলেন। আর একজন কংগ্রেস নেতাকে প্রায় ‘‌নিজেদের’‌ করে তুলতে চাইছে বিজেপি। মোহনদাস করমচাঁদ গান্ধী!‌ স্বচ্ছ ভারত অভিযানের মাথায় গান্ধীজির চশমা। বেঁচে থাকলে সেই চশমা দিয়ে কী দেখতেন গান্ধী?‌‌ সারা জীবন হিন্দু–‌মুসলিম সম্প্রীতির জন্য লড়াই করেছেন তিনি। দলিত, পিছিয়ে–‌পড়া মানুষদের জন্য মন কাঁদত তাঁর এবং লড়াই করতেন সামনে দাঁড়িয়ে। ‘‌স্বচ্ছ ভারত’‌ নিশ্চয় চেয়েছেন গান্ধীজি, কিন্তু তার মানে কিছু শৌচালয় নয়, ফাঁপানো বিজ্ঞাপন নয়। চেয়েছেন একটা স্বচ্ছ–‌সুন্দর ভারত, যেখানে সাম্প্রদায়িক ঘৃণা থাকবে না। চেয়েছেন এমন স্বচ্ছ–‌আদর্শ ভারত, যেখানে দলিত ও নিপীড়িত মানুষদের অস্তিত্ব ও সম্মান সুরক্ষিত হবে। বিজেপি গান্ধীকে কোথায় নামিয়ে এনেছে?‌ বরেণ্য ইতিহাসবিদ ইরফান হাবিব বলেছেন,‌ ‘‌যেন তিনি প্রিন্সিপাল স্যানিটারি ইনস্পেক্টর!‌’‌  ‌

জনপ্রিয়

Back To Top