বিনয় সহস্রবুদ্ধে সঙ্ঘের ঘনিষ্ঠ, তাঁকে ভারতীয় সাংস্কৃতিক পরিষদের মাথায় বসানো হয়েছে, খবরটা এরকমই। অন্তর্লীন বার্তাটি এই যে, বিধানসভা ভোটের আগেই মধ্যপ্রদেশের ভারপ্রাপ্ত বিনয়কে সরানো হল, অমিত শাহ খুঁজছেন নতুন মুখ। শিবরাজ সিং চৌহান ১৫ বছর ক্ষমতায় আছেন, তাঁর ডান ও বাঁ হাতের মতো ছিলেন প্রদেশ সভাপতি নন্দকুমার চৌহান ও বিনয় সহস্রবুদ্ধে। এই ত্রয়ীর সামনে বড় চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিয়েছেন কংগ্রেসের ত্রয়ী— জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, দিগ্বিজয় সিং ও কমল নাথ। রাষ্ট্রীয় স্বয়ংসেবক সঙ্ঘের আশঙ্কা, এই মুহূর্তে ভোট হলে বিজেপি ২৩১ আসনের বিধনসভায় ১০০ পেরোতে পারবে না। দুর্নীতি, কৃষকের আত্মহত্যা, ব্যবসায় মন্দা— এই ত্রিফলায় বিদ্ধ শিবরাজের সরকার। কৃষকরা ফসলের দাম পাচ্ছেন না, অবস্থা এতটাই খারাপ যে গ্রামীণ মধ্যপ্রদেশের প্রায় ৭০ শতাংশ মানুষ বিজেপি–র দিক থেকে মুখ ফিরিয়ে নিয়েছেন। রাস্তঘাট ওয়াশিংটনের থেকেও ভাল বলে বড়াই করে শিবরাজ নিজেকে হাসির খোরাক করে তুলেছেন। এখনই ভোট হলে বিজেপি–র ১৬৫ বিধায়কের অনেকেই হেরে যাবেন। ২০১৩ সালে বিজেপি ভোট পেয়েছিল ৪৫%, কংগ্রেস ৩৬%, বহুজন সমাজ পার্টি ৭% আর গোন্ডওয়ানা গণতন্ত্র পার্টি ২.‌৫%। ঘটনা এই যে, মায়াবতীর উত্থানের পরই মধ্যপ্রদেশে কংগ্রেসের ফল খারাপ হতে শুরু করেছে। এখন মায়াবতীর পড়তি দশা, কংগ্রেসের সঙ্গে জোট ছাড়া তিনি ভেসে থাকতে পারবেন না। কংগ্রেস, বসপা আর গোন্ডওয়ানা পার্টির আসন রফা হলে মধ্যপ্রদেশে এবার বিজেপি–র হার নিশ্চিত। সেক্ষেত্রে কংগ্রেস ১১০, বসপা ১৬, গোন্ডওয়ানা পার্টি ৮ আসন জিততে পারে— অন্তত এরকমই বলছে একটি সমীক্ষা। ভিন্ড, মহাকোশলে কংগ্রেস সামলে নিয়েছে, কিন্তু মালওয়া, নিমাড়ে হাল ততটা ভাল নয়। তাই জোট চাই। আর এই জোট ভাঙতেই নামবেন অমিত শাহ। দল বঁাচাতে চাই কংগ্রেসকে, আর মামলা থেকে বঁাচতে চাই বিজেপি–‌কে। বাকিটা মায়ার খেলা।‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top