যেদিন দেশে কোভিড অতিমারীতে আক্রান্তের সংখ্যা ২০ লক্ষের দিকে, মৃত্যু ৪০ হাজার, টানা সাতদিন রোজ সংক্রমণ ৫০ হাজারের বেশি, মহোৎসবে প্রধানমন্ত্রী। মহা ধুমধাম। রামমন্দির নির্মাণ শুরু। নবরত্ন–শোভিত রাম মূর্তি, প্রধানমন্ত্রীর মাথায় হনুমানগড়িতে পরানো হয়েছে রুপোর মুকুট, গঁাথা হল রুপোর ইট। মেরা ভারত মহান।
দিলীপ ঘোষ দাবি করেছেন, ৫ আগস্টকে জাতীয় ছুটির দিন ঘোষণা করা হোক, ভারতবাসী প্রতি বছর দিনটিকে স্মরণ করবে। ‘‌অভিজিৎ মুহূর্তে’‌ শুরু, ১২টা ৪৪ মিনিট ৮ সেকেন্ড।‌ ঠিক এই লগ্নেই রামচন্দ্র জন্মেছিলেন যে!‌ জন্মদিনটাও বলা হোক। জাতীয় ছুটি!‌
১৯৫৪ সালের ৮ জুলাই ভাকড়া নাঙ্গাল বঁাধের উদ্বোধন করেছিলেন প্রধানমন্ত্রী জওহরলাল নেহরু। বলেন, ‘‌আধুনিক ভারতের মন্দির।’‌ শিল্প, শিক্ষা, প্রযুক্তির নতুন নতুন ‘‌মন্দির’‌ গড়ার স্বপ্ন। ৬৬ বছরের মধ্যে পেরেছে সঙ্ঘ পরিবার। আধুনিক, ধর্মনিরপেক্ষ ভারতের স্বপ্ন চুরমার করে দিতে পেরেছে। জয় শ্রীরাম। ৫ আগস্ট হতেই পারে জাতীয় ছুটি। 
স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সংক্রমিত। পেট্রেলিয়াম মন্ত্রী আক্রান্ত। খোদ উত্তরপ্রদেশের মন্ত্রী কমলা রানি কোভিডে প্রাণ হারিয়েছেন। উৎসবের সময় বটে!‌ অমিত শাহ বলেছিলেন, ‘‌গত কয়েকদিনে যঁারা আমার কাছাকাছি এসেছেন, তাঁরা কোয়ারেন্টিনে যান, টেস্ট করান’‌। রবিশঙ্কর প্রসাদ–‌সহ কয়েকজন মন্ত্রী তা–‌ই করেছেন। কিন্তু, ক্যাবিনেট বৈঠকে তঁার ‘‌পাশে’‌ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী। কোয়ারেন্টিন?‌ ফুঃ। রামমন্দিরের ইট গঁাথতে হবে না?‌ দেশ সঙ্কটে, আর্থিক দুর্গতিও প্রবল, মহোৎসবের এই তো সময়। ধর্মস্থানে জমায়েত নিষিদ্ধ করেছে সরকার। কিন্তু, রামমন্দির বলে কথা, পুজোয় স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী, নিয়ম মানার কী দরকার!‌
সোনালি কুর্তা–‌শোভিত নরেন্দ্র মোদি বহুল প্রচারিত পুজো করলেন?‌ দূরত্ব বিধি?‌ হাতে হাতে ফুল। প্রায় গায়ের ওপর হুমড়ি খেয়ে পড়লেন রাজ্যপাল। সমবেত সাধুকুলের অনেকেরই মাস্ক গলায়, থুতনিতে। ‘‌আছে তো’‌‌!‌ অযোধ্যা শহরে ভিড়, ভক্তদের ‘‌কিছু হবে না’‌!‌ কারও কিছু হবে না। হবে শুধু মন্দির। নেহরু–‌কথিত ‘‌মন্দির’‌ নয়, রামমন্দির। দেশবাসীকে নিয়মবিধি মানার লেকচার দিচ্ছেন যিনি, তঁার নেতৃত্বে নিদারুণ বিধিভঙ্গ। মেরা ভারত মহান।
রামমন্দির নির্মাণ সমাপ্ত হবে ২০২৪ সালে। লোকসভা ভোট। কে আটকায়?‌ প্রগতিশীল, ধর্মনিরপেক্ষ ভারতকে সমাধিস্থ করে ওঁদের ভারত নির্মাণ।‌ ধনুকধারী নরেন্দ্র মোদির ছবি, বিশাল মন্দিরের ছবি, কে আটকায়?‌ যঁারা আটকাতে পারেন, তঁাদের মধ্যে একজন, মমতা ব্যানার্জি বললেন, ‘‌জীবনের শেষ নিঃশ্বাস পর্যন্ত বৈচিত্রের মধ্যে ঐক্য রক্ষার চেষ্টা করব’‌। আর, ১৩৫ বছরের কংগ্রেস?‌ কমল নাথ ১১টি রুপোর ইট পাঠালেন। দু’‌দিন আগে থেকে হনুমানচালিশা পাঠ। ছত্তিশগড় ‘‌রামের মামার বাড়ি’‌!‌ মুখ্যমন্ত্রী জানালেন, কৌশল্যা মন্দির বিরাট হবে। দেখার মতো হবে। রাহুল গান্ধী মৃদু খোঁচা–‌সহ রামনাম জপলেন। প্রিয়াঙ্কা গান্ধী কয়েক দফার টুইটে রীতিমতো ‘‌প্রবন্ধ’‌ লিখে ফেললেন। রাম ভজনার সঙ্গে বললেন, মন্দির নির্মাণের সূচনা দেশের ইতিহাসে অবিস্মরণীয়। ঐক্যবদ্ধ ভারতের প্রতীক!‌ ২০২২ সালে উত্তরপ্রদেশে কংগ্রেস লড়বে প্রিয়াঙ্কার নেতৃত্বে। গরম হিন্দুত্বের সামনে নরম হিন্দুত্ব। নরমও কি আর থাকল?‌ বলা হচ্ছে, ভোটের কৌশল। কৌশল, কৌশল, তোমার নীতি নাই কংগ্রেস?‌ 
প্রধানমন্ত্রী দীর্ঘ ভাষণে চারবার ‘‌আধুনিক’‌ শব্দটা ব্যবহার করলেন। পৌরাণিক চরিত্রকে ঐতিহাসিক চরিত্র বানিয়ে, আধুনিক ভারত!‌ ‌প্রধানমন্ত্রী বললেন, স্বাধীনতার জন্য কয়েক প্রজন্মের মানুষ আত্মত্যাগ করেছিলেন। ১৫ আগস্ট তার প্রতীক। তেমনই, রামমন্দির নির্মাণের জন্য বলিদান কয়েক প্রজন্মের দেশবাসীর। ৫ আগস্ট তার প্রতীক। ১৫ আগস্ট প্রসঙ্গে যাওয়া যাক। অনেকের আত্মত্যাগে, সংগ্রামে স্বাধীনতা পেয়েছিল ভারত। সেই ‘‌অনেকের’‌ মধ্যে আরএসএস–‌এর কেউ ছিলেন না। মোদির পূর্বসূরিদের কেউ ছিলেন না। আন্দামানের সেলুলার জেলে নির্বাসিত ও নির্যাতিত সংগ্রামীদের মধ্যে ওঁদের নাম দূরবিন দিয়েও দেখা যাবে না। সঙ্ঘ পরিবারের প্রণম্য সাভারকার ব্রিটিশ সরকারের কাছে ক্ষমা চেয়ে চিঠি দেন। সহযোগিতার আশ্বাস দেন। গোলওয়ালকার সরাসরি স্বাধীনতা আন্দোলনের বিরোধিতা করেন। ব্রিটিশ–‌ভক্ত হিসেবে সঙ্ঘ নেতাদের নাম কয়লার অক্ষরে খোদিত, প্রতিষ্ঠিত। দুর্ভাগ্য ভারতের, তঁাদেরই যোগ্য উত্তরসূরি ১৫ আগস্ট লালকেল্লায় জাতীয় পতাকা তুলছেন। ১৫ আগস্টের সমতুল্য হিসেবে ৫ আগস্টকে তুলে ধরে উদার ভারতের ধ্বংসের ইট গঁাথলেন প্রধানমন্ত্রী। ভূমিপুজো নয়, ধ্বংস–‌পুজো!‌‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top