চরম বিরোধীরাও আড়ালে স্বীকার করেন, মমতা ব্যানার্জির সরকার এমন কিছু জনকল্যাণমূলক প্রকল্প ঘোষণা করেছে, রূপায়িত করেছে, যা গোটা দেশের কাছে দৃষ্টান্ত। শুধু দেশ নয়, আন্তর্জাতিক স্বীকৃতিও আসছে। ‘‌কন্যাশ্রী’‌  রাষ্ট্রপুঞ্জের পুরস্কার পেয়েছিল সেরা প্রকল্প হিসেবে। বিজেপি নেতারা বলেন, তঁারাও তো কেন্দ্রে ‘‌বেটি বাঁচাও বেটি পড়াও’‌ প্রকল্প চালু করে দিয়েছেন। তথ্যটা দেখুন। গোটা দেশের জন্য যত খরচ করেছে কেন্দ্র, বাংলায়, একটা রাজ্যেই কন্যাশ্রী–‌তে তার আড়াই গুণ ব্যয়। সাফল্য। কোনও তুলনাই হয় না। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি এমন ৪৫টি প্রকল্প এনেছেন, যা দেশের কোথাও নেই। এবার রাষ্ট্রপুঞ্জের বিশেষ পুরস্কার পেল ‘‌উৎকর্ষ বাংলা’‌। পৃথিবীর সেরা কোন দেশের কোন প্রকল্প?‌ ১৬০০ প্রকল্প এসেছিল নানা দেশ থেকে। তার মধ্যে এক নম্বরে জায়গা পেল ‘‌সবুজ সাথী’। গত কয়েক বছরে বাংলায় স্কুল ছাত্রছাত্রীদের হাতে প্রায় ৯০ লক্ষ সাইকেল তুলে দেওয়া হয়েছে। মুখ্যমন্ত্রী নির্দেশ দিলেন, অবিলম্বে সংখ্যাটা ১ কোটিতে নিয়ে যেতে হবে। প্রকল্পটিকে এতই গুরুত্ব দিচ্ছেন যে, রাজ্যে সাইকেল কারখানা গড়ার ডাক দিয়েছেন। সাইকেল পরিবেশবান্ধব যান, সবাই জানেন। এই ভয়াল অতিমারীর সময়ে তা নিশ্চিতভাবে বোঝা গেল। গ্রামাঞ্চলের অনেক ছাত্রছাত্রী অনেকটা পথ হেঁটে স্কুলে যেত। রোদ বৃষ্টি সত্ত্বেও যেতে হত। হাতে হাতে সাইকেল সেই সমস্যাটা মিটিয়েছে। সন্দেহ নেই, পরোক্ষভাবে স্কুলছুটের সংখ্যাও কমিয়েছে। আবার বলি, মুখে যতই কুকথা বলুন, কর্কশ বিরোধীরাও মানেন, দারুণ ‘‌কন্যাশ্রী’‌, দারুণ ‘‌সবুজ সাথী’‌।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top