অভূতপূর্ব সঙ্কট বিশ্ব জুড়ে। বিজ্ঞান অনেক এগিয়েছে, মানুষ অনেক কিছু জেনেছে, পেরেছে। ১৯০২ সালে স্প্যানিশ ফ্লু মারাত্মক হয়েছিল, কিন্তু তখন চিকিৎসা বিজ্ঞান এত উন্নত হয়নি। কোভিড–‌১৯ সর্বোন্নত দেশগুলোকেও বিধ্বস্ত করছে। কোনও দেশ, কোনও রাজ্য নিখঁুত মোকাবিলা করতে পারছে না, কারণ পথটা জানা নেই। ভারতের অনেক রাজ্য থেকে বাংলার অবস্থা ভাল, কিন্তু এজন্য সন্তুষ্ট থাকার কারণ নেই। মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জি বারবার বলেছেন, লড়াইটা কঠিন। শুধু প্রশাসনিক ব্যবস্থা ও চিকিৎসা নয়, চাই মানুষের সচেতনতা। বিরোধী নেতারা দিবারাত্র গালি দিচ্ছেন। সিপিএম নেতারা জেনেছেন, প্রথমে ভাল ব্যবস্থা করার পরেও কেরল ফের সমস্যায়। আর বিজেপি?‌ কী অবস্থা বিজেপি–‌শাসিত রাজ্যগুলোয়?‌ দিল্লির ব্যবস্থাপনায় শুধু অরবিন্দ কেজরিওয়ার নন, স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী অমিত শাহও। দিল্লি পুলিশ তঁার হাতে। ভাইরাসের বিরুদ্ধে লড়াইয়েও তিনিই নেতা, সঙ্গে উপরাজ্যপাল ও মুখ্যমন্ত্রী। কী পরিস্থিতি দিল্লির, সকলেই জানেন। বিজেপি–‌র মধ্যপ্রদেশ। ভোপালের সরকারি হাসপাতালে রোগীরা খাবার পাচ্ছেন না, অভিযোগ বাড়ছে। পরিযায়ী স্পেশ্যাল বন্ধ করেও সমস্যায়। কর্ণাটক। কোভিড হাসপাতালে অসংখ্য শূকর ঘুরে বেড়াচ্ছে, মেনেছেন মুখ্যমন্ত্রী। উত্তরপ্রদেশ। ব্যবস্থাপনায় চূড়ান্ত ব্যর্থতা। বরেলির হাসপাতালে ছাদ ফুটো হয়ে জল পড়ছে, আক্রান্তরা বেড–‌এ পা তুলে বসে আছেন, কাঁপছেন। বিহারে এনডিএ সরকার। স্বাস্থ্যমন্ত্রী মঙ্গল পান্ডের কেন্দ্র সিওয়ানে স্বাস্থ্যকর্মীরা বলছেন, ডাক্তাররা পঁাচ মিনিট থেকে চলে যাচ্ছেন, চাপ সামলাতে হিমশিম খেতে হচ্ছে। খোদ গুজরাট?‌ আমেদাবাদের সবচেয়ে বড় হাসপাতালে চিকিৎসা–‌কেলেঙ্কারি। যঁারা বাংলায় চেঁচাচ্ছেন, তঁারা জানুন, তারপর বলুন। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top