তিন কৃষি বিলের বিরুদ্ধে, প্রত্যাহারের দাবিতে, দিল্লি অভিযান উত্তর ভারতের কৃষকদের। পাঞ্জাব, হরিয়ানা, উত্তরপ্রদেশ, দিল্লি‌–‌সংলগ্ন রাজ্যগুলো থেকে লক্ষ কৃষক জড়ো হয়েছেন। আন্দোলন ভাঙার চেষ্টা যথারীতি শুরু হয়েছে। ‌ভাঙার চেষ্টা যথারীতি শুরু হয়েছে। ছোট একটা অংশের নেতাদের নিয়ে বৈঠক। অধিকাংশ কৃষক শর্তাধীন বৈঠকের ডাক প্রত্যাখ্যান করেছেন। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, এই আন্দোলনে রাজনৈতিক ইন্ধন নেই‌। আবার প্রধানমন্ত্রী বললেন, বিরোধীরা ভুল বোঝাচ্ছে, মদত দিচ্ছে। অবর্ণনীয় কষ্টের মধ্যে কৃষকরা পথে, কেন্দ্রীয় সরকারের মনোভাব কী?‌ শাসক দলের মনোভাব কী?‌ পাঞ্জাব থেকে আসা হাজার হাজার মানুষকে হরিয়ানা সীমান্তে গায়ের জোরে আটকানোর চেষ্টা করে খট্টর সরকার। এমনভাবে ব্যারিকেড দেয়, যাতে আহত হতে পারেন আন্দোলনকারীরা। কাঁদানে গ্যাস ছোড়া হয়েছে, যাতে পদাযাত্রীরা ছত্রভঙ্গ হন। না। ওঁরা অটল। উত্তর ভারতে এখন প্রবল শীত। তাপমাত্রা ৭ ডিগ্রি সেলসিয়াসের কাছাকাছি। চালানো হল জলকামান। ঠান্ডায় অসুস্থ হয়ে গিয়ে রণে ভঙ্গ দেন কৃষকরা, নির্মম উদ্দেশ্য। তবু কৃষকদের দমানো যায়নি। একদিকে এই নিষ্ঠুরতা, অন্যদিকে কৃষকদের মানসিকতা। ঠাসা ভিড়, যখনই কোনও অ্যাম্বুল্যান্স এসেছে, সঙ্গে সঙ্গে সংগঠকরা পথ করে দিয়েছেন। রোগীর আত্মীয়দের বলেছেন, নিশ্চয় আপনার প্রিয়জন ভাল হয়ে উঠবেন। কৃষক–‌পথ রোধ করতে আজ্ঞা পালন করছেন পুলিশকর্মীরা। কৃষকরা তঁাদের জল দিচ্ছেন, খাবার দিচ্ছেন, বসিয়ে খাওয়াচ্ছেন। লড়াইয়ের সঙ্গে মানবিকতা। লড়াকু সৌজন্য।‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top