অবশেষে বিজেপি দেশবাসীর মুখে হাসি ফোটাল। দিল্লিতে বানাল পার্টি অফিস। তাদের দাবি, বিশ্বের সবথেকে বড় পার্টি অফিস। তবে? কে বলে ভারত পিছিয়ে আছে?‌ ১২০ কাঠা জমির ওপর তিন–তিনটে বাড়ি, ৭০ ঘর, শীতাতপনিয়ন্ত্রিত, অজস্র অফিসঘর, অগণিত গাড়ি রাখার বিশাল জায়গা, ঝকঝকে চকচকে সাজ, আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তি ব্যবস্থায় মোড়া, ঘরে ঘরে হাইফাই ওয়াইফাই, ইলেকশন রুম, কনফারেন্স হল, খাওয়াদাওয়ার এলাহি আয়োজন (‌‌অবশ্যই নিরামিষ এবং আশা করা যায় খঁাটি ঘি, দুধ মিলবে)‌। সব মিলিয়ে পাঁচতারা আয়োজন। আহা! মন ভরে যায় আহ্লাদে, বুকে ভরে যায় গর্বে। নিজের দেশে এরকম একটা পার্টি অফিস থাকা তাজমহল, কুতুব মিনারের মতোই। ঘুরে ঘুরে দেখতে হবে। দেশের পর্যটন ম্যাপে রাখতে হবে। এরকম আনন্দঘন সময়ে নিন্দুকেরা ভুরু কোঁচকাতে শুরু করেছে। কেন? তাদের রাগ কীসের? বিজেপি কি চাটাই–‌টালির ঘরে, মাটির মেঝেতে মাদুর পেতে বসে পার্টি চালাবে? দেশ বড়, দল বড়, টাকার পরিমাণ বড়, তাই পার্টি অফিসও বড়। সহজ হিসেব। হিংসে করে লাভ নেই। তা ছাড়া এই অফিসে আসবে কারা? সেটা মাথায় রাখতে হবে না হিংসুটের‌ দল? ঋণের দায়ে আত্মহত্যা করতে চাওয়া কৃষক, নোটবাতিলে বন্ধ হয়ে যাওয়া কারখানা শ্রমিক, নাভিশ্বাস ওঠা ছোট ব্যবসায়ী, ব্যাঙ্ক সুদে, স্বল্পসঞ্চয়ে মার খাওয়া মধ্যবিত্ত, বেকার যুবকরা তো এখানে আসছে না। এলেও রাজপ্রাসাদ দেখে ভয়ে পালাবে। মনে রাখতে হবে, এই পঁাচতারায় ঘন ঘন আসবে দেশের সেই ‘‌‌তারা’রা,‌ যারা কোটিপতি। যাদের হাতে বিজেপি দেশটাকে প্রতিদিন বিক্রি করছে নানা ফন্দিফিকিরে। আর সেই ফন্দি বানাতে আরাম চাই। তাই বিজেপি–র পঁাচতারা পার্টি অফিস নিয়ে ভুরু কোঁচকানো বোকামি। বরং আসুন, সবাই বুক ফুলিয়ে বলি, দেশ গোল্লায় যাচ্ছে তো কী হয়েছে, সবসে উঁচা পার্টি অফিস হামারা।

জনপ্রিয়

Back To Top