শুক্রবার সুপ্রিম কোর্টের চার প্রবীণ বিচারপতির নজিরবিহীন বিস্ফোরণ। সোমবার সব ‘‌স্বাভাবিক’‌। মাঝে শনি–‌রবি, কোর্ট বসেনি, কী করে মিটে গেল সঙ্কট?‌ সত্যিই কি মিটল?‌ ‘‌স্বাভাবিক’‌ হয়ে গেল?‌ গুরুত্বপূর্ণ মামলাগুলোর শুনানির জন্য পাঁচ জনের বেঞ্চ গড়লেন প্রধান বিচারপতি, তাতে ‘‌বিদ্রোহী’‌ বিচারপতিদের একজনও নেই। কী দাঁড়াল?‌ দেখা যাক। সুপ্রিম কোর্টের গন্ডগোলে শাসক দলের ভূমিকা নিয়েও কিছু প্রশ্ন থেকে গেল। চার বিচারপতির বিস্ফোরক অভিযোগের সূত্রে যখন সর্বত্র উদ্বেগ, প্রধানমন্ত্রী কথা বললেন আইনমন্ত্রীর সঙ্গে।‌ বলতেই পারেন, যদিও সর্বোচ্চ ন্যায়ালয়ের ক্ষেত্রে নাক গলাতে পারেন না। তবু, প্রধান বিচারপতির বাড়িতে হাজির প্রধানমন্ত্রীর দপ্তরের প্রধান কর্তা নৃপেন্দ্র মিশ্র। কেন গেলেন?‌ উনি বলছেন, নতুন বছরের শুভেচ্ছা জানাতে গিয়েছিলেন। ‘‌নতুন’‌ বছরের শুভেচ্ছা জানাতে গেলেন ১৩ জানুয়ারি, একটু খটকা লাগে না?‌ কী উদ্দেশ্যে গিয়েছিলেন?‌ প্রশ্ন থেকে গেল। সঙ্কট নিরসনের জন্য অতিরিক্ত তৎপর হয়ে উঠলেন বার কাউন্সিল–‌এর চেয়ারম্যান মননকুমার মিশ্র। প্রধান বিচারপতির সঙ্গে আলাদাভাবে কথা বলে বার প্রধান বিচারপতির সমালোচনায় মুখর হলেন। ভাষা নরম, কিন্তু বক্তব্য চরম। উল্লেখযোগ্য, এই মননকুমার মিশ্র বিজেপি–‌তে যোগ দিয়েছেন। প্রশ্ন না উঠে পারে?‌‌ সিবিআই কোর্টের বিচারপতি লোয়ার রহস্যজনক মৃত্যু  নিয়ে বিতর্ক চলছে। লোয়াকে প্রভাবিত করা যায়নি, তাঁর জায়গায় যিনি এলেন, এসেই একটি মামলা থেকে রেহাই দিলেন অমিত শাহকে। চার বিচারপতির অভিযোগে এই মামলাটিও ছিল। লোয়ার ছেলে, একুশ বছর বয়সি অনুজ সাংবাদিক সম্মেলন ডেকে বললেন, বাবার মৃত্যু নিয়ে কোনও রহস্য নেই। অভিযোগ নেই। পরিবারের অন্যরা কিন্তু অন্য কথা বলছেন। সাংবাদিকরা প্রাসঙ্গিক প্রশ্ন করতেই, থামিয়ে দিলেন ঝানু আইনজীবী। এঁদের মধ্যেই একজন বলেন, ‘‌অমিত স্যরের কথায়’‌ সাংবাদিক সম্মেলন। অনেক প্রশ্ন জমে গেল।   ‌‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top