আজকালের প্রতিবেদন: ‌চা–শ্রমিকদের নিয়ে জয়েন্ট ফোরামের লড়াইয়ে পাশে দাঁড়াল কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলি। সেই সঙ্গে ১২ দফা দাবিতে তারা যে আইন অমান্য কর্মসূচি নিয়েছে, তাতে চা–শ্রমিকদের দাবিগুলিকেও যুক্ত করল। শুক্রবার সাংবাদিক সম্মেলন করে এ কথা জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নের নেতৃবৃন্দ। সিটু রাজ্য সভাপতি অনাদি সাহু জানিয়েছেন, উত্তরবঙ্গের সাড়ে ৪ লক্ষ চা–শ্রমিকের ন্যূনতম মজুরির দাবিতে ২৯টি ট্রেড ইউনিয়ন মিলে জয়েন্ট ফোরাম গঠন করেছিল। ৩ বছর ধরে তারা লাগাতার আন্দোলন করছে। মালিক এবং রাজ্য সরকার সমস্ত দাবি নিয়ে চুপ। আমাদের দাবি, পুলিস বা মালিকদের সঙ্গে একতরফা কথা বললে হবে না, ফোরামের সঙ্গে এই দাবিদাওয়া নিয়ে আলোচনায় বসতে হবে রাজ্য সরকারকে। এখনও দাবিদাওয়ার ভিত্তিতে আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছে ফোরাম। সিটু, ইনটাক, টিইউসিসি, এআইসিসিটিইউ, ইউটিইউসি, এআইটিইউসি এক যৌথ বিবৃতিতে এদিন জানিয়েছে, ২০ ফেব্রুয়ারি শ্রমিকদের ১২ দফা দাবিতে আইন অমান্য রয়েছে। সেখানে চা–শ্রমিকদের এই দাবিগুলো যুক্ত করা হয়েছে। সেই সঙ্গে জয়েন্ট ফোরামের সমস্ত কর্মসূচিতেও কেন্দ্রীয় ট্রেড ইউনিয়নগুলি যুক্ত থাকবে। আমাদের দাবি, রাজ্য সরকারকে ত্রিপাক্ষিক চুক্তির মাধ্যমে চা–বাগানের শ্রমিকের সমস্যার সমাধান করতে হবে। বকেয়া বোনাস অবিলম্বে মেটাতে হবে। বন্ধ ৩০টি চা–বাগান খুলতে এখনই তৎপর হতে হবে রাজ্য সরকারকে। বন্ধ বাগানের শ্রমিকদের রেশন, শিক্ষা ও স্বাস্থ্যের ব্যবস্থা করতে হবে সরকারকে। সরকার পারে মালিককে বাধ্য করতে।‌

জনপ্রিয়

Back To Top