আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌ভোগ্যপণ্যের চাহিদা বাড়ছে বাজারে। পাশাপাশি গ্রাম এবং শহর– দুই অর্থনীতিতেই বৃদ্ধি স্পষ্ট। জুনে নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিস, পুষ্টিকর খাবার, ওষুধপত্র, সাবান–স্যাম্পু, হ্যান্ড স্যানিটাইজার জাতীয় পণ্যের বিক্রি বেড়েছে বাজারে। জানাচ্ছে নিয়েলসন সংস্থার সাম্প্রতিক সমীক্ষা। প্রাক–করোনা পর্বে বিগত ১৮ মাস ধরেই ভোগ্যপণ্যের চাহিদা একটু একটু করে কমছিল। তখন থেকেই ঝিমিয়ে দেশের অর্থনীতি। এরপর অতিমারীর ধাক্কায় খাদের কিনারায় এসে পড়েছে! এপ্রিল–মে মাসে চাহিদা তলানিতে ঠেকেছিল।‌ আনলক পর্বে জুন থেকে বাজারে চাহিদা বাড়তে শুরু করেছে। করোনা আবহে মানুষ অনেক বেশি স্বাস্থ্য সচেতন এখন। ফলে পুষ্টিকর খাবারের পাশাপাশি স্বাস্থ্য সুরক্ষা পণ্যের চাহিদা বাজারে বেড়েছে। নিজেকে সুস্থ–চাঙ্গা রাখতেই খরচ বেশি করছেন মানুষ, নিয়েলসনের রিপোর্টেই পরিষ্কার তা। পাশাপাশি ঘুরতে যাওয়া বা বড় রেস্তোরাঁয় খেতে যাওয়ার মতো বিলাসিতায় সাহস পাচ্ছেন না অনেকে। আগামী কতদিনে করোনা সঙ্কট কাটবে, সেই আশঙ্কাও রয়েছে। হতেই পারে, ফের লকডাউন, ফের বেতন ছাঁটাই বা চাকরিই চলে যেতে পারে!‌ সেই আশঙ্কায় ‘‌অন্য খরচ’‌ থেকে পিছিয়ে আসছে মধ্যবিত্ত, বলছে রিপোর্ট। 
নিয়েলসন জানাচ্ছে, খুচরো বাজার ছেড়ে ই–কমার্স সংস্থার থেকেই জিনিস কিনতেই বেশি পছন্দ করছে সাধারণ মানুষ। সমীক্ষায় দেখা গেছে, অনলাইন শপিং ২০% বেড়েছে এই সময়ে। সংস্থার দক্ষিণ–এশীয় শাখার প্রেসিডেন্ট প্রসূন বসু বলেন, ‘গ্রাম এবং শহরে–দু’‌জায়গাতেই পণ্যের চাহিদা বেড়েছে। অর্থনীতিতে ভাল সঙ্কেত এটা। অদ্ভূতভাবে, শহরের তুলনায় গ্রামের অর্থনীতিতে বেশি বৃদ্ধি দেখা যাচ্ছে।’‌  

জনপ্রিয়

Back To Top