আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ ‌চরম আর্থিক সঙ্কটে ভুগছে দেশের টেলিকম সংস্থাগুলি। তবে কেন্দ্রের ঘোষণায় কিছুটা স্বস্তি পেল সংস্থাগুলি। কেন্দ্রের কাছে বকেয়া টাকার পরিমান দিনে দিনে বেড়েই চলেছে। স্পেকট্রাম ফি বাবদ এখনও হাজার হাজার কোটি টাকা দিতে হবে শুধু কেন্দ্রকে। সেই জায়গায় দাঁড়িয়ে কিছুটা বাড়তি সময় চেয়েছিল টেলিকম সংস্থার সংগঠন। এই সুবিধা না পেলে ভবিষ্যতে এদেশে ব্যবসা চালানো কার্যত অসম্ভব হয়ে উঠবে। আর তখন পরিস্থিতি আরও জটিল হয়ে উঠতে পারে, আঁচ করেই বকেয়া টাকা মেটানোর সময়সীমা বাড়িয়ে দিল কেন্দ্র। কেন্দ্রের তরফে জানিয়ে দেওয়া হল, ২০২২ সালের মধ্যেই স্পেকট্রাম বাবদ সমস্ত বকেয়া টাকা মিটিয়ে দিতে হবে টেলিকম সংস্থাগুলিকে। 
গত অক্টোবর মাসেই বকেয়া টাকা মিটিয়ে দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছিল শীর্ষ আদালত। কিন্তু ব্যবসায় মন্দার কারণে সেই মেটাতে ব্যর্থ হয়েছে সবকটি সংস্থা। চলতি অর্থবর্ষে বিপুল আর্থিক ক্ষতির শিকার হয়েছে ভোডাফোন–এয়ারটেলের মতো কোম্পানিগুলি। বিনামূল্যে ফোন করার পরিষেবা তুলে নিতে বাধ্য হয়ে রিলায়েন্স জিও। শুধুমাত্র ভোডাফোন এবং আইডিয়ার আর্থিক ক্ষতির পরিমানই প্রায় ৫১ হাজার কোটি টাকা। সেই সময়ে টেলিকম সংস্থাগুলি জানিয়েছিল, এখনই এই পরিমান টাকা সরকার দিতে হলে তাদের পক্ষে এদেশে ব্যবসা বন্ধ করে দিতে হবে। সেক্ষেত্রে আরও বড় সমস্যায় পড়বে কেন্দ্রীয় সরকার। টেলি সংস্থাগুলির সংগঠন সিওএআই কেন্দ্রকে গোটা পরিস্থিতির কথা জানিয়ে সমস্যা সমাধানের আরজি জানায়। এরপরই সংগঠনের আরজি খতিয়ে দেখার পাশাপাশি টেলিকম ক্ষেত্রে সংকট কাটাতে কী করণীয় সেই সিদ্ধান্তে পৌঁছতে ক্যাবিনেট সচিবদের তত্ত্বাবধানে একটি কমিটি তৈরি করে কেন্দ্র। কোন পথে হাঁটলে টেলিকম সংস্থাগুলি স্বস্তি দেওয়া সম্ভব, তা খতিয়ে দেখে ওই কমিটি। তারপরই সচিবদের কমিটির সুপারিশের ভিত্তিতে স্পেকট্রামের বকেয়া মেটানো দু’বছরের জন্য পিছিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।  

জনপ্রিয়

Back To Top