আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ বুধবার ১০ গ্রাম সোনার দাম ৫০ হাজার টাকার গণ্ডি পেরিয়েছে। ন’‌ বছর পর। কলকাতায় পাকা সোনা দাঁড়াল জিএসটি নিয়ে ৫২,২৭২ টাকা। রুপোর বাট কর সমেত ৬০,৬৯৭। 
চীনের পরেই দুনিয়ায় সবথেকে বেশি সোনা কেনাবেচা হয় ভারতে। এ হেন দেশেই সোনার দাম এখন আকাশছোঁয়া। অনুঘটকের কাজ করেছে কোভিডের কারণে দুর্বল অর্থনীতি, ডলারের দাম পড়ে যাওয়া, সুদের হার হ্রাস। 
কিন্তু তাবলে সোনার এত দাম কেন?‌ ভবিষ্যতে কি আদৌ কমবে সোনার দাম?‌ নাকি বেড়েই যাবে? ২০২০ সালের প্রথমার্ধ্বে সোনার গতিবিধি ওপরের দিকেই ছিল। মার্চে একটু পড়েছিল সোনার দাম। কিন্তু জুলাইতে ফের ঊর্ধ্বমুখী। বুধবার লন্ডনে এক ট্রয় আউন্স সোনার দাম ছিল ১,৮৫৬.‌৬ মার্কিন ডলার (‌ভারতীয় মুদ্রায় এক লক্ষ ৩৮ হাজার ৮৫৩ টাকার মতো)‌। শেষবার এর কাছাকাছি সোনার দাম উঠেছিল ২০১১ সালের সেপ্টেম্বরে। তখন এক ট্রয় আউন্সের দাম উঠেছিল ১,৯২০ মার্কিন ডলার। এক ট্রয় আউন্স সোনা মানে ৩১.‌১০৩৪৭৬৮ গ্রাম।
করোনা সংক্রমণের বহু আগে থেকেই বাড়ছে সোনার দাম। পাশাপাশি বাড়তে শুরু করেছিল সোনায় লগ্নিও। এর প্রভাবেই খোলা বাজারে সোনার দর হয়েছে আকাশছোঁয়া। মার্কিন–চীন শুল্ক যুদ্ধ, আমেরিকা–ইরান কূটনেতিক ও আর্থিক সম্পর্কের টানাপড়েনের জেরে বিশ্ব অর্থনীতি একটু টালমাটাল হয়ে পড়েছিল। ফলে সারা পৃথিবীতে লগ্নির ক্ষেত্রগুলি বহু দিন ধরে অনিশ্চিত। শেয়ার, বিদেশি মুদ্রার বাজার থেকে তাই অনেকে মুখ ফিরিয়েছেন সোনায়। এর কারণে গত এক বছর আন্তর্জাতিক দুনিয়ায় সোনা আরও দামি হয়েছে। তাল মিলিয়ে ভারতেও চড়েছে দর। এ বার সোনার দাম বাড়ানোর পিছনে অনুঘটকের কাজ করল করোনা।
কেন সোনাকে লগ্নির জন্য এতটা সুরক্ষিত মনে করছেন বিনিয়োগকারীরা?‌ একমাত্র এদেশেই বিয়ের জন্য বাধ্যতামূলক ছিল সোনা। সেই সোনা এখন বিনিয়োগকারীদের ভরসার জায়গা। কারণ শেয়ার, রিয়েল এস্টেট বা ডলারের দাম পড়লেও সোনার দাম পড়ার আশঙ্কা নেই বললেই চলে। তাছাড়া গত ২০ বছরে এর জোগানও বেড়েছে ১.‌৬ শতাংশ। তাছাড়া সোনা সংরক্ষণে অসুবিধা নেই। ধার দিতে হয় না। তরল সম্পত্তি, অন্য কারও দায় জড়িয়ে নেই। সর্বোপরি দিন দিন দাম বেড়েই চলেছে। আর সোনা থেকে রিটার্ন পাওয়ার ক্ষেত্রেও ঝুঁকি নেই। ১৯৭৩ সাল থেকে প্রতি বছর সোনার দাম বেড়েছে ১৪.‌১ শতাংশ। গত এক বছরে দাম বেড়েছে ৪০ শতাংশ। যেখানে সেনসেক্স পড়েছে ০.‌৪১ শতাংশ। 
তাহলে সোনার দাম কি আরও বাড়বে?‌ বিশেষজ্ঞরা বলছেন, হ্যাঁ। আগামী দেড়–দু’‌বছরে ১০ গ্রাম সোনার দাম এদেশে হতে পারে ৬৫ হাজার টাকা। দেশে সুদের হার কমবে। সেটাও সোনার দাম বৃদ্ধির অন্যতম কারণ। যটদিন না করোনা সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণে আসবে এবং তার টিকা বের হবে,ততদিন সোনার দাম বাড়তেই থাকবে বলে মত মিলউড কেন ইন্টারন্যাশনাল–এর সিইও নিশ ভাটের।    ‌  

জনপ্রিয়

Back To Top