আজকালের প্রতিবেদন: রাজ্যে বিশ্ব বাণিজ্য সম্মেলনে যোগ দিতে এবার চীন থেকে আসছে ৩০টি শিল্প সংস্থা। গতবার এই সংখ্যাটা ছিল ১৫। এদের মধ্যে ১০টি শিল্প সংস্থা এই প্রথম ভারতে আসছে বাণিজ্যের সম্ভাবনা খতিয়ে দেখতে। বাকিগুলি ইতিমধ্যেই ভারতে তাদের বাণিজ্যিক কাজকর্ম চালাচ্ছে। উল্লেখ্য, যে ১০টি শিল্প সংস্থার প্রতিনিধিরা এই বাণিজ্য সম্মেলন উপলক্ষে প্রথম ভারতে আসছেন তঁাদের সঙ্গে থাকবেন জিয়াঙসু প্রদেশের ‘‌ভাইস গভর্নর’‌ চেন ঝেনিং। রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা ব্যানার্জিকে চীনের বিভিন্ন প্রদেশ থেকে যাওয়ার জন্য আমন্ত্রণ জানানো হয়েছে বলে জানিয়েছেন কলকাতায় চীনের কনসাল জেনারেল মা ঝানয়ু।
চীন ঠিক করেছে প্রতি বছর বিদেশে ২০০ বিলিয়ন ডলার বিনিয়োগ করবে। এ বছর এই বিনিয়োগের বিষয়টি বিশ্ব বাণিজ্য সম্মেলন ও অন্যান্য বিভিন্ন বিষয়ের দিকে তাকিয়েই ঠিক করা হবে। 
মঙ্গলবার এ ব্যাপারে মা ঝানয়ু বলেন, ‘‌পূর্ব ভারতে বাণিজ্য বেড়ে উঠতে এই বেঙ্গল গ্লোবাল বিজনেস সামিট (‌বিজিবিএস)‌ একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করবে। চীন পূর্ব ভারতে বিশেষ করে বাংলায় বাণিজ্য বৃদ্ধিতে খুবই গুরুত্ব দেয়।’‌ 
এদিন রাজ্য সরকারের প্রশংসা করে কনসাল জেনারেল বলেন, বাংলার পরিবেশ ক্রমশ উন্নত হচ্ছে। একটা সময় ছিল অফিসারদের সঙ্গে দেখা করা যেত না। এখন সহজেই দেখা করা যায়। 
কনসাল জেনারেল জানিয়েছেন, বাংলাদেশ, চীন, ভারত ও মায়ানমারকে নিয়ে যে অর্থনৈতিক করিডর  তৈরি হচ্ছে তার মধ্যে বাংলা এবং পূর্ব ভারতের বেশ কিছু রাজ্য আছে। চীনের  কমিউনিস্ট পার্টি কংগ্রেসে এই রাজ্যগুলির সঙ্গে  সম্পর্ক বাড়িয়ে তোলার জন্য রূপরেখা তৈরি করা হয়েছে। 
কনসাল জেনারেল জানিয়েছেন, তঁার দেশ আমদানিতে বেশি গুরুত্ব দেয়। একদিকে যেমন বাংলা থেকে দার্জিলিঙের চা–সহ পাট, সি–‌ফুড, বিভিন্ন হস্তশিল্প ও পোশাক রপ্তানি হচ্ছে, তেমনি চীন থেকে ইলেকট্রনিক যন্ত্রপাতি–সহ নিত্য প্র‌য়োজনীয় বিভিন্ন জিনিস বাংলায় আসছে। ‌‌

জনপ্রিয়

Back To Top