আজকাল ওয়েবডেস্ক:‌ মাত্র ১২ বছর বয়সে অভিনয় শুরু করেন ছবিতে। তিনিই একমাত্র নায়িকা, যিনি ভারতীয় সিনেমার নির্বাক থেকে সবাক— এই যাত্রাপথে সামিল হয়েছেন। ১৯৩১ সালে প্রথম সবাক ছবি ‘‌আলম আরা’‌–য় অভিনয় করেছিলেন। সাহসী দৃশ্যেও পিছপা হননি। তিনি জুবেইদা বেগম। পরে রাজার ঘরণী হয়ে প্রাসাদেই বাকি জীবনটা কাটিয়েছেন।
জুবেইদার জন্ম ১৯১১ সালে। বাবা মহম্মদ ইয়াকুত খান। মা ফতিমা বেগম ভারতীয় চলচ্চিত্র জগতের প্রথম মহিলা পরিচালক। জুবেইদার তাই ছবিতে নামতে অসুবিধা হয়নি। তাঁর বাকি দুই বোন শেহজাদি এবং সুলতানাও অভিনয় করেন। তবে জুবেইদার মতো খ্যাতি কেউ অর্জন করতে পারেননি।
জুবেইদার প্রথম ছবি ‘‌কোহিনুর’‌। তখন তাঁর বয়স মাত্র ১২। এর পর ১৯৩১ সালে ‘‌আলম আরা’‌ তাঁর জীবনের মোড় ঘুরিয়ে দেয়। অভিনয়ের জোরেই ভারতীয় সিনেমায় শক্ত জায়গা তৈরি করে ফেলেন জুবেইদা। সেই আমলে নায়কের সমান, কখনও তাঁদের থেকেও বেশি টাকা পেতেন। তাঁকে দেখে অনুপ্রাণিত হয়েই মেয়েরা ছবির জগতে পা বাড়ায়।
১৯৩২ সালে মুক্তি পায় ‘‌জারিনা’‌। সেখানে স্বল্পবসনা জুবেইদাকে দেখে ঘুম উড়ে যায় যুবকদের। ছবিতে বেশ কিছু ঘনিষ্ঠ দৃশ্যে অভিনয় করেন তিনি। এতটুকু জড়তা ছিল না অভিনয়ে। এর আগে হিন্দি ছবিতে চুমুর দৃশ্য থাকলেও এ রকম ঘনিষ্ঠ দৃশ্য সেভাবে দেখা যায়নি। সেই অর্থে জুবেইদার প্রথম নায়িকা, যিনি এ ধরনের দৃশ্যে অভিনয় করেন।
খ্যাতির শীর্ষে থাকতেই বিয়ে করেন নরসিঙ্গার ধনরাজগিরকে। হয়ে যান হায়দরাবাদের নবাবের বেগম। ১৯৪৯ সালে ‘‌নির্দোষ অবলা’‌ ছবিতে শেষবার দেখা যায় তাঁকে। এর পর বাকি জীবন হায়দরাবাদের প্রাসাদেই কাটিয়ে দেন। এক ছেলে এবং এক মেয়ের মা হন। ১৯৮৮ সালে মারা যান নবাবের বেগম। ভারতের প্রথম সবাক ছবির নায়িকা। জুবেইদা। 

জনপ্রিয়
আজকাল ব্লগ

Back To Top