আজকাল ওয়েবডেস্ক: ‌নিজের লেখা বইয়ে নরেন্দ্র মোদিকে ছত্রপতি শিবাজির সঙ্গে তুলনা করলেন বিজেপি নেতা জয়ভগবান গোয়েল। আর তাতেই ফের ক্ষেপে উঠল সারা মহারাষ্ট্র। দিল্লি বিজেপির একটি ধর্মীয়–সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ‘‌আজ কে শিবাজি–নরেন্দ্র মোদি’‌ নামে তাঁর লেখা ওই বইটি প্রকাশ করেন গোয়েল। সেখানে বীর মারাঠা যোদ্ধা রাজা ছত্রপতি শিবাজির আসনে মোদিকে বসিয়েছেন লেখক। দোর্দণ্ডপ্রতাপ মুঘল সম্রাট ঔরঙ্গজেবের সঙ্গে প্রায় একা লড়ে মারাঠা রাজ্যের প্রতিষ্ঠাতা শিবাজিকে নিয়ে বরাবরই অত্যন্ত আবেগপ্রবণ মারাঠিরা। তার উপর সম্প্রতি মহারাষ্ট্র বিধানসভা ভোটের পর শিবসেনাকে মুখ্যমন্ত্রীর পদ দিতে বিজেপি রাজি না হওয়ায় এমনিতেই ক্ষেপে ছিলেন রাজ্যবাসীর একাংশ। এর মধ্যে গোয়েলের ওই বই যজ্ঞাগ্নিতে ঘৃতাহুতির কাজ করেছে। বিজেপি নেতা এবং তাঁর লেখাকে তুলোধনা করেছে শিবসেনা, এনসিপি এমনকি প্রদেশ কংগ্রেসও। শিবাজির বংশধর শম্ভাজি রাজে বর্তমানে বিজেপি রাজ্যসভা সাংসদ। তাঁর আরেক বংশধর উদয়রাজে ভোঁসলে বিধানসভা ভোটের আগে এনসিপি ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে সাতারা উপ নির্বাচন লড়েছিলেন, কিন্তু হেরে যান। এই ঘটনার নিরিখে অবিলম্বে শিবাজির বংশধরদের বিজেপির সঙ্গ ত্যাগ করা উচিত বলে দাবি করেছে শিবসেনা। শিবসেনার শীর্ষ নেতা সঞ্জয় রাউতের প্রশ্ন, ‘‌ছত্রপতি শিবাজির বংশধররা জবাবদিহি করবেন, তাঁরা মোদিকে শিবাজির সঙ্গে তুলনা পছন্দ করছেন কিনা। এই বইয়ের জন্যই শিবাজির বংশধরদের বিজেপিকে ছাড়া উচিত।’ মারাঠাদের ভাবাবেগে আঘাত করার অভিযোগে প্রদেশ ‌কংগ্রেসের মুখপাত্র অতুল লোন্ঢে নাগপুর পুলিসের কাছে জয়ভগবান গোয়েলের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন। জল অন্যদিকে গড়ানোর ইঙ্গিত পেয়ে শম্ভাজি রাজে অমিত শাহর কাছে দাবি তুলেছেন অবিলম্বে বইটি নিষিদ্ধ ঘোষণা করার জন্য। তিনি বলেছেন, জনমতে নির্বাচিত হয়ে আসার জন্য নরেন্দ্র মোদিকে তিনি সম্মান করলেও ছত্রপতি শিবাজি মহারাজের জায়গা কেউ নিতে পারবেন না।        

জনপ্রিয়

Back To Top